কাজে কোনও অবহেলা বরদাস্ত করা হবে না : যোগী - Breaking Bangla |breakingbangla.com | Only breaking | Breaking Bengali News Portal From Kolkata |

Breaking

Post Top Ad

Sunday, 3 April 2022

কাজে কোনও অবহেলা বরদাস্ত করা হবে না : যোগী



 রাজ্যে দ্বিতীয়বার সরকার গঠনের পর প্রথম বারানসী সফরে মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথকে দেখা গেল কড়া মনোভাবে।  উন্নয়ন কাজ ও আইনশৃঙ্খলা সংক্রান্ত পর্যালোচনা সভায় মুখ্যমন্ত্রী অভিযোগগুলো অগ্রাধিকার ভিত্তিতে নিষ্পত্তি করার নির্দেশ দেন।


 তিনি বলেন, আইজিআরএস পোর্টালে অভিযোগ দ্রুত নিষ্পত্তি করা প্রয়োজন।  এতে কোনও প্রকার দ্বিধা-দ্বন্দ্ব সহ্য করা হবে না।


 সার্কিট হাউসে অনুষ্ঠিত বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী বলেছিলেন যে আইজিআরএস পোর্টালে প্রাপ্ত অভিযোগগুলি দেখে মনে হচ্ছে যে সেগুলি সমাধান করার পরিবর্তে অফিসাররা কেবল একে অপরের উপরের ওপর দায় চাপাচ্ছেন ।


 আবেদনের নিষ্পত্তির দিকে তাকালে দেখা যায়, এখনো সংশ্লিষ্ট সমস্যার সমাধান না হলেও কর্মকর্তারা পোর্টালে সমাধান দেখিয়ে দেন, এ ধরনের অবহেলা বরদাস্ত করা হবে না।


 বৈঠকে আধিকারিকদের ভাবমূর্তি উন্নত করার পরামর্শও দেন মুখ্যমন্ত্রী।  তিনি বলেন, থানায় সাধারণ মানুষের সঙ্গে ভালো আচরণ করতে হবে। 


থানায় টাউটদের কোনও ভূমিকা থাকা উচিৎ নয়।  থানা, মিউনিসিপ্যাল ​​কর্পোরেশন, তহসিল, ব্লক, সকলেই তাদের আচরণে উন্নতি করে এবং তাদের ভাবমূর্তি উন্নত করে।  তিনি কর্মকর্তাদের তাদের ভাবমূর্তি উন্নত করার জন্য বিশেষভাবে নির্দেশ দেন।


 অনেক সময় দেখা যায় যে কোনও ঘটনার পর কর্মকর্তারা সময়মতো ঘটনাস্থলে পৌঁছান না।  এতে সরকার ও প্রশাসনের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হচ্ছে।  কর্মকর্তারা খবর পেয়ে সঙ্গে সঙ্গে ঘটনাস্থলে পৌঁছে সঠিক তথ্য গণমাধ্যমে তুলে ধরেন।


 তিনি মিশন শক্তি কর্মসূচিকে শুধুমাত্র অ্যান্টি-রোমিওর মধ্যে সীমাবদ্ধ না রেখে সন্ধ্যায় এবং যানজটপূর্ণ এলাকায় পায়ে টহল বাড়ানোর এবং এ বিষয়ে ব্যাপক ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ দেন।


 প্রকল্পের অগ্রগতি প্রতিবেদনও চাওয়া হয়েছে

 বৈঠকে মুখ্যমন্ত্রী আধিকারিকদের কাছে জেলায় যে প্রকল্পগুলি সম্পন্ন হয়েছে এবং উন্নয়ন কাজ চলছে তার রিপোর্ট দিতে বলেছেন।


 এ সময় কর্মকর্তাদের তরফে মুখ্যমন্ত্রীর কাছে প্রতিবেদনও জমা দেওয়া হয়।  জেলা ম্যাজিস্ট্রেট কৌশল রাজ শর্মাও পিপিটি-এর মাধ্যমে উন্নয়ন কাজের উপস্থাপনা দেন।


 মুখ্যমন্ত্রী বলেছেন যে বড় প্রকল্পগুলিতে সময়োপযোগীতার যত্ন নেওয়া অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।  এই সময়, কমিশনার দীপক অগ্রবাল স্মার্ট সিটি প্রকল্পগুলির অগ্রগতির একটি বিশদ উপস্থাপনা দেন, জেলা ম্যাজিস্ট্রেট কৌশল রাজ শর্মা, উন্নয়ন কাজ এবং এডিজি জোন এবং পুলিশ কমিশনার এ সতীশ গণেশ অপরাধ নিয়ন্ত্রণ সংক্রান্ত অগ্রগতির বিশদ উপস্থাপনা দেন।


 মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ বলেছেন যে কাশী বিশ্বনাথ ধাম করিডোর উদ্বোধনের পরে, এখানে পর্যটক এবং ভক্তদের সংখ্যা ব্যাপকভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে।  দেশ ও বিশ্বের দৃষ্টি কাশীর দিকে।


 উন্নয়নকাজ সম্পন্নকারী নির্বাহী সংস্থাগুলোকে নির্ধারিত সময়ের মধ্যে উচ্চমানের সব কাজ সম্পন্ন করতে হবে।  মুখ্যমন্ত্রী বলেছিলেন যে নির্মাণ কাজের সময় প্রতিটি স্তরে সুরক্ষা মানগুলি অনুসরণ করা প্রয়োজন।  এ ব্যাপারে কোনও গাফিলতি  বরদাস্ত করা হবে না।


 মুখ্যমন্ত্রী বলেছিলেন যে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর নেতৃত্বে, সারা দেশে এবং উত্তরপ্রদেশে করোনার ব্যবস্থাপনা উচ্চ মানের ছিল। 


এমতাবস্থায়, টিকাদান অভিযান, বিশেষ করে ১৫ থেকে ১৭বছর বয়সী কিশোর-কিশোরীদের টিকাদানে বিশেষ মনোযোগ দেওয়া প্রয়োজন।  এখন স্কুল-কলেজ খুলেছে, বিশেষ ক্যাম্পেইন চালিয়ে এর ১০০% টার্গেট যথাসময়ে পূরণ করতে হবে। 


আজ থেকে গোটা রাজ্যে সংক্রামক রোগ নিয়ন্ত্রণে বিশেষ অভিযান শুরু হয়েছে।  এর আওতায় পরিচ্ছন্নতা, ফগিংয়ের ব্যবস্থা কার্যকরভাবে অব্যাহত রাখতে হবে।  সংক্রামক রোগ নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচি কার্যকরভাবে বাস্তবায়ন করতে হবে।


 ক্রয় কেন্দ্রে কৃষকদের সমস্যা হওয়ার কথা নয়

 মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ গম সংগ্রহ কেন্দ্র এবং গম সংগ্রহের পর্যালোচনা করেছেন।  তিনি বলেন, গম ক্রয় কেন্দ্রগুলোকে পূর্ণাঙ্গভাবে কার্যকর রাখতে হবে।


 কৃষকরা যাতে এখানে কোনও সমস্যায় না পড়েন তাও নিশ্চিত করতে হবে।  কেন্দ্রে বরো সহ কৃষকদের বসার উপযুক্ত ব্যবস্থা থাকতে হবে।


 মুখ্যমন্ত্রী হওয়ার পর প্রথমবার শনিবার বাবার দরবারে পৌঁছলেন যোগী আদিত্যনাথ।  রাজ্যের উন্নয়ন, কল্যাণ ও সৌভাগ্য কামনা করে বাবা বিশ্বনাথের কাছে পূজো করলেন। 


বাবাকে পূজো করার পর মুখ্যমন্ত্রী ললিতা ঘাটে অবস্থিত নেপালি মন্দিরে পৌঁছে নেপালের প্রধানমন্ত্রীর আগমনকে স্বাগত জানান।


   নেপালি মন্দিরে দর্শন দেওয়ার পরে, মুখ্যমন্ত্রী নেপালি বৃদ্ধাশ্রমে বসবাসরত বৃদ্ধ মায়েদের সাথে মতবিনিময় করেন এবং তাদের সুস্থতার খোঁজ নেন।  এর আগে কাশীর কোতোয়ালের পুজো করেন মুখ্যমন্ত্রী। 


 গয়া জানালা ঘাটের উন্নয়ন কাজের পাশাপাশি কাজকপুরায় নির্মাণাধীন রওবির সাইট পরিদর্শন করা হয়।  তিনি ঘটনাস্থলে উপস্থিত ব্রিজ কর্পোরেশন পরিদর্শন করেন। তিনি বলেন, নির্মাণকাজ চলাকালীন যান চলাচলের ব্যবস্থাও সুষ্ঠুভাবে নিশ্চিত করতে হবে, যাতে সাধারণ জনগণকে কোনোও ধরনের সমস্যায় পড়তে না হয়।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad