জেনে নিন ময়েশ্চারাইজড ত্বক পেতে: কিছু ঘরোয়া প্রতিকার - Breaking Bangla |breakingbangla.com | Only breaking | Breaking Bengali News Portal From Kolkata |

Breaking

Post Top Ad

Thursday, 23 December 2021

জেনে নিন ময়েশ্চারাইজড ত্বক পেতে: কিছু ঘরোয়া প্রতিকার

 






 প্রসঙ্গত, যখন ত্বকে আর্দ্রতার অভাব থাকে, তখন ত্বকের শুষ্কতার সমস্যা দেখা দেয়। এই অবস্থায় মাঝে মাঝে ফেসিয়াল পাওয়া ভাল। বাজারে ফেসিয়াল পেতে অনেক টাকা খরচ হয়। এই ক্ষেত্রে, বাড়িতে তৈরি ফেসিয়াল মাস্ক ব্যবহার করা যেতে পারে।


বাদাম এবং মধু প্যাক: আপনি যদি ফল এলার্জি হয় বা ফল নিতে অক্ষম হয়, তাহলে বাদাম এবং মধু ফেস প্যাক ও ব্যবহার করা যেতে পারে। এই ফেস প্যাক তৈরি করতে, বাড়িতে ৪-৫টি বাদাম পিষে মধু মেশান। তারপর মুখে এই প্যাক প্রয়োগ করুন। এই প্যাক ১৫ মিনিটের জন্য শুকিয়ে যেতে দিন এবং তারপর পরিষ্কার জল দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। মুখ থেকে প্যাক অপসারণ পর, বাদাম তেল দিয়ে মুখ হালকা ম্যাসেজ। ম্যাসেজের পর, আধা চা চামচ ক্যাম্পহোর, এক চা চামচ লেবুর খোসা গুঁড়া, এক চা চামচ গ্রাম ময়দা এক ডিম সাদা মিশিয়ে একটি স্ক্রাব দিয়ে আপনার মুখ হালকা ম্যাসেজ করুন। ৫-৭ মিনিট পর ধুয়ে ফেলুন। এতে মুখের উন্নতি হবে এবং মুখ কখনও শুষ্ক হবে না।



মধু সঙ্গে বৃদ্ধি: মধু শুষ্ক ত্বক জন্য খুব কার্যকরী। ঠাণ্ডায় খুব শক্তিশালী বাতাস আছে, যা ত্বককে আরো শুষ্ক এবং প্রাণহীন করে তোলে। এই ক্ষেত্রে, একটি মধু মাস্ক ব্যবহার এবং ত্বক নরম করুন। ভাল ফলাফলের জন্য, আপনি এটি প্রতিদিন মুখে প্রয়োগ করতে পারেন। মধু প্রয়োগ ২০ মিনিট পর মুখ ধুয়ে ফেলুন। এটি প্রতিদিন ব্যবহার মুখে উজ্জ্বল করে তোলে এবং ত্বক কখনও ফেটে না যায়।



অ্যালোভেরা ফেসিয়াল: অ্যালোভেরা ফেসিয়াল মুখের ত্বকের জন্য খুব স্বাস্থ্যকর এবং উপকারী বিবেচনা করা হয়। এটা ত্বকের অগ্ন্যুৎপাত ঘটায় না। প্রসঙ্গত, প্রতি রাতে ঘুমানোর সময় অ্যালোভেরা জেল প্রয়োগ করলে, মুখ কখনও ঘুম থেকে ওঠে না।  অ্যালোভেরা মাস্ক তৈরি করতে, অ্যালোভেরা জেলে গ্লিসারিন মিশিয়ে একটি পেস্ট তৈরি করুন। এখন সকালে এক ঘন্টার জন্য প্রতিদিন এই পেস্ট ম্যাসেজ করুন। এটা কখনোই ত্বক ভাঙ্গার কারণ হবে না। আপনি যদি নিয়মিত আপনার ত্বকে ভাল মানের অ্যালোভেরা জেল ব্যবহার করেন, তাহলে কয়েক দিনের মধ্যে আপনার মুখের শুষ্কতা পুরোপুরি চলে যাবে।


গ্লিসারিন এবং গোলাপ জল:


গ্লিসারিন এবং গোলাপ জল এছাড়াও শুষ্ক ত্বকের জন্য ভাল মাস্ক। গ্লিসারিনে সমান পরিমাণ গোলাপ জল এবং লেবুর রস যোগ করুন। এখন এই মিশ্রণ প্রতি রাতে মুখে প্রয়োগ করুন এবং ঘুমান। সকালে ঠান্ডা জল দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। এটি মুখের ত্বক নরম করে তোলে।


ফ্রুট মাস্ক: বাড়িতে তৈরি ফেসিয়াল মাস্ক শুষ্ক ত্বকের জন্য সেরা বিবেচনা করা হয়। ফলের ফেসিয়াল তৈরি করতে, পেঁপে, কলা, মধু, অ্যাভোকাডো, এবং দুধ একসাথে মিশিয়ে মুখে এবং গলায় প্রয়োগ করুন। এটা ত্বক ময়শ্চারাইজ করবে।



খনিজ ফেসিয়াল:  এই ফেস মাস্ক ত্বক পর্যাপ্ত পরিমাণ পুষ্টি সরবরাহ করে। ফেস স্ক্রাবিং প্রথমে এই প্যাক মধ্যে করা হয়। এর ফলে ত্বক গভীর পরিষ্কার হয়। এই ফেসিয়াল সঙ্গে ত্বক তীক্ষ্ণ এবং স্বাস্থ্যকর দেখায়। এর জন্য দুধ ও দই তে সামান্য মুলতানি মিটি এবং এক চিমটি হলুদ যোগ করুন। এবার এই পেস্ট দিয়ে আধ ঘণ্টা মুখ ম্যাসেজ করুন। আধা ঘন্টা পর ঠান্ডা জল দিয়ে আপনার মুখ ধুয়ে ফেলুন। এর ফলে মুখ পরিষ্কার এবং পরিষ্কার দেখাবে।




No comments:

Post a Comment

Post Top Ad