লাল ভিন্ডির স্বাস্থ্য উপকারিতা! - Breaking Bangla |breakingbangla.com | Only breaking | Breaking Bengali News Portal From Kolkata |

Breaking

Post Top Ad

Wednesday, 3 November 2021

লাল ভিন্ডির স্বাস্থ্য উপকারিতা!



রেড লেডিসফিঙ্গার বা লাল ভিন্ডি  সবজি চাষকারী কৃষকদের সুস্থ থাকতে সাহায্য করবে।  শুধু তাই নয়, এটি সবার স্বাস্থ্যেরও যত্ন নেবে।  এতে পাওয়া পুষ্টিগুণে স্বাস্থ্য ভালো থাকবে।  সাধারণ ভিন্ডির চেয়ে বেশি দামে বিক্রি করে কৃষকরাও ধনী হবে।  এতে অনেক ধরনের পুষ্টি উপাদান পাওয়া যায় বলে বিশেষজ্ঞদের ধারণা।  এটি ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে খুবই কার্যকরী।  কৃষি বিশেষজ্ঞদের মতে, লাল ভিন্ডি স্বাস্থ্যের ভান্ডার। এটি হৃদরোগ, স্থূলতা এবং ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করার ক্ষমতা রাখে।


 এটি কোলেস্টেরল প্রতিরোধে সাহায্য করবে।  ৯৪% পলি আনস্যাচুরেটেড ফ্যাট খারাপ কোলেস্টেরল কমায়। ৬৬% সোডিয়াম উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে সহায়ক। ২১ শতাংশ আয়রন রক্তস্বল্পতা এবং রক্তস্বল্পতা সম্পর্কিত অন্যান্য রোগ প্রতিরোধে কার্যকর। ৫% প্রোটিন শরীরের মেটাবলিক সিস্টেম বজায় রাখতে সহায়ক।  সব মিলিয়ে এটি ঔষধি গুণে পরিপূর্ণ।


 আচার্য নরেন্দ্র দেব কৃষি ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়,কুমারগঞ্জ এর উপাচার্য, অযোধ্যার ড. বিজেন্দ্র সিং-এর উদ্ভিজ্জ ফসল গবেষণায় উল্লেখযোগ্য অবদান রয়েছে।  তিনি মোট ৫৬ প্রজাতির সবজি উদ্ভাবন করেছেন, যার মধ্যে সবচেয়ে বেশি ১৫ টি প্রজাতির ভিন্ডি।  ডক্টর সিং লাল রঙের ভিন্ডির বিকাশের মাধ্যমে প্রথমবারের মতো ভিন্ডির পাঁচটি হাইব্রিড প্রজাতির বিকাশের মাধ্যমে লাইমলাইটে আসেন।  তিনি বলেন, লাল রঙের ভিন্ডি শুধু খেতেই সুস্বাদু নয়, লাল রঙের কারণে এতে অ্যান্থোসায়ানিন পাওয়া যায়।  এই কারণে এর পুষ্টিগুণ বৃদ্ধি পায়।  এটি স্বাদে সবুজ ভিন্ডির মতোই। লাল, সবুজ, কালো সব ধরনের পুষ্টি উপাদান এতে পাওয়া যায়।  এটি একই ভিন্ডি, কিন্তু এটিতে একটি ভিন্ন জিন ঢোকানোর কারণে এটি লাল হয়ে গেছে।  এতে অপরিশোধিত ফাইবার রয়েছে।  এটি সুগারও নিয়ন্ত্রণ করে।  এটিতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন  বি কমপ্লেক্স রয়েছে।


 হাপুরের দোহরি গ্রামের বাসিন্দা বিনীত তোমর এবং হাতরাসের গধখেদা গ্রামের মনোজ কুশওয়াহার মতে, বাজারে সাধারণ ভিন্ডির চেয়ে এটির দাম বেশি পাওয়া যায়।  পাইকারি বাজারে সবুজ ভিন্ডির দাম প্রতি কেজি ১২ থেকে ১৫ টাকা হলে চাহিদা ও মান অনুযায়ী লাল ভিন্ডি বিক্রি হয় ৪৫ থেকে ৮০ টাকা দরে।  এতে ফসলে ভালো লাভ পাওয়া যায়।  


এর বপনের জন্য সবচেয়ে উপযুক্ত সময় ফেব্রুয়ারি থেকে এপ্রিলের দ্বিতীয় সপ্তাহ।ডিসেম্বর-জানুয়ারি মাসে এর বৃদ্ধি কম হবে, তবে ফেব্রুয়ারি থেকে ফল আসা শুরু হবে, যা নভেম্বর পর্যন্ত পাওয়া যাবে।


 তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবং মুখ্যমন্ত্রী যোগী বারবার কৃষকদের আয় দ্বিগুণ করার কথা বলছেন।  কৃষিতে বৈচিত্র্য ও উদ্ভাবনের জন্য কৃষকদের কাছে আবেদন করছেন। প্রধানমন্ত্রী প্রায়শই তাঁর মন কি বাত-এ কৃষকদের নিয়ে কথা বলেন।  শুধু তাই নয়, মুখ্যমন্ত্রীর উদ্যোগে ঝাঁসিতে স্ট্রবেরি ফেস্টিভ্যাল, সিদ্ধার্থনগরে কালো লবণ, মুজাফফরনগর এবং লখনউতে গুড় মহোৎসবের আয়োজন করা হয়েছে।  তার অনুপ্রেরণাতেই  আমরা লাল ভিন্ডি চাষের কথা চিন্তা করি।


 বুলন্দশহরের সিকান্দ্রার বাসিন্দা উমেশ সাইনি এবং সীতাপুরের রামপুরবেহের বাসিন্দা মুরলিও লাল ভিন্ডি  চাষে সন্তুষ্ট।  এই মরসুমে এর আবাদের আওতাধীন এলাকা বাড়ানোর কথা ভাবছেন সবাই।

 ইউপিএল উত্তরপ্রদেশ এবং উত্তরাখণ্ডের আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক কৃষাণ কুমার সারস্বতের মতে, আয়রন এবং প্রোটিনে সমৃদ্ধ  এই সবজি রক্তচাপ, সুগার এবং খারাপ কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণে সহায়ক। 


 আয় বৃদ্ধির সাথে সাথে মানুষ স্বাস্থ্য সচেতন হয়ে উঠেছে।  এই ভিন্ডি বাজারে সাধারণ ভিন্ডির থেকে বহুগুণ বেশি দামে বিক্রি হয়।  খরচ ইত্যাদিসহ মোট খরচের পরেও কৃষক এটি বিক্রি করে দেড় গুণ বেশি আয় করতে পারে।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad