ফের বোমাবাজি, ঘটনাস্থলে রয়েছে পুলিশ - Breaking Bangla |breakingbangla.com | Only breaking | Breaking Bengali News Portal From Kolkata |

Breaking

Post Top Ad

Sunday 9 July 2023

ফের বোমাবাজি, ঘটনাস্থলে রয়েছে পুলিশ

 



 ফের বোমাবাজি, ঘটনাস্থলে রয়েছে পুলিশ


নিজস্ব সংবাদদাতা, মুর্শিদাবাদ, ০৯ জুলাই : শনিবার পঞ্চায়েত নির্বাচনের পরও বাংলায় সহিংসতা থামছে  না।  রবিবার সকাল থেকে মুর্শিদাবাদের সমশেরগঞ্জ এলাকায় ব্যাপক বোমাবাজি চলছে। বোমা বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটেছে মুর্শিদাবাদের সমশেরগঞ্জের হিরানন্দপুরে।  নির্দল ও তৃণমূল সমর্থকদের মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে।  নির্বাচনের পরদিন মুর্শিদাবাদের সমশেরগঞ্জ থানার অন্তর্গত হিরানন্দপুরে নির্দল সমর্থক ও তৃণমূল সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষ হয়। মাত্র একদিনের নির্বাচনী সহিংসতায় প্রায় ২০ জন নিহত হয়েছে, এর পাশাপাশি পঞ্চায়েত নির্বাচনের মনোনয়নের পর থেকে প্রায় ৪০ জন লোক সহিংসতার শিকার হয়েছে।    


মুর্শিদাবাদে সকাল থেকেই দুই পক্ষের মধ্যে গোলাগুলির খবর পাওয়া যাচ্ছে।  খবর পেয়ে সমশেরগঞ্জ থানার বিপুল সংখ্যক পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছেছে।  বোমাবাজির পাশাপাশি দু পক্ষের মধ্যে ইট-পাথর ছোড়ার খবর পাওয়া গেছে। এদিকে, ভীমপুর থানার কারসাউনা গ্রামের ২৫৭ নম্বর বুথে দুটি ব্যালট বাক্স নিয়ে পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ হয় এবং বিক্ষুব্ধ জনতা পুলিশের গাড়ি ভাঙচুর করে।  এতে গাট্টা ক্যাম্পের ইনচার্জ নীলরতন বাবুসহ চার পুলিশ সদস্য আহত হন।


 বৈষ্ণবনগরের ভগবানপুর এলাকার এক তৃণমূল কর্মীর মৃতদেহ পাওয়া গিয়েছে।  তৃণমূল কর্মীর নাম মতিউর রহমান।  তাঁর বাড়ি ভগবানপুর কেবিএস এলাকায়।  কংগ্রেস দুষ্কৃতীরা ধারালো অস্ত্র দিয়ে বারবার পেটে কুপিয়ে তাঁকে হত্যা করেছে বলে অভিযোগ।  এ ছাড়া এ ঘটনায় আহত হয়েছেন আরও ৬ জন। ভোটের পরেও পূর্ব বর্ধমানে অশান্তি অব্যাহত রয়েছে।  মেমারির নিমো ২ নম্বর পঞ্চায়েতের দেহুরায় ব্যালট বাক্সগুলি অন্য গাড়িতে নিয়ে যাওয়া হয়েছে বলে অভিযোগ করেছে সিপিআইএম এবং বিজেপি।  এর প্রতিবাদে ভোটগ্রহণ কর্মীদের সঙ্গে অন্যান্য বুথের ব্যালট পেপারও বন্ধ করে দেওয়া হয়।  গেটে তালা লাগিয়ে ভোটাররা বুথে বিক্ষোভ দেখান।


 অভিযোগ উঠেছে যে গাড়িতে ব্যালট পেপার নিয়ে যাওয়া হয়েছিল সেই গাড়ির পিছনে তৃণমূল কংগ্রেস নেতাদের গাড়ি।  ওই বুথে পুনঃভোট দাবি করেছে বিরোধীরা।  পরে রাতে পুলিশ ও কেন্দ্রীয় বাহিনী গিয়ে ভোট কর্মীদের উদ্ধার করে।  আটকে থাকা ব্যালট বাক্স সরিয়ে ফেলা হয়েছে। শনিবার রাজ্যের যেসব জেলায় সবচেয়ে বেশি সহিংসতা হয়েছে।  মুশিদাবাদ, কোচবিহার, দক্ষিণ ২৪ পরগনা, মালদা, বর্ধমান, উত্তর ২৪ পরগনা, নদীয়া এবং বীরভূম অন্তর্ভুক্ত। 


 নদীয়া সাম্প্রতিক সময়ে বিজেপির উত্থান দেখেছে, কিন্তু একসময় কংগ্রেসও ছিল।  যেমন গ্রামীণ বর্ধমানে সিপিএমের আধিপত্য।  অনুব্রত মণ্ডলের অনুপস্থিতিতে, বিজেপি দক্ষিণবঙ্গের বীরভূম এবং হুগলির মতো নির্বাচনী এলাকায় শাসন ঠেকানোর চেষ্টা করেছে।  উত্তরবঙ্গের কোচবিহারেও বিজেপির দাপট রয়েছে।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad