অভিনয়ে টাইপকাস্ট নিয়ে কি বললেন এই অভিনেত্রী! - Breaking Bangla |breakingbangla.com | Only breaking | Breaking Bengali News Portal From Kolkata |

Breaking

Post Top Ad

Sunday, 13 November 2022

অভিনয়ে টাইপকাস্ট নিয়ে কি বললেন এই অভিনেত্রী!


তিনি অন্যান্য বছরগুলিতে যে সমস্ত চরিত্রে অভিনয় করেছেন তা বেশ স্বতন্ত্র এবং একে অপরের থেকে আলাদা। তিনি আবারও কথামৃত-এ একজন মধ্যবয়সী গৃহবধূর একটি সাধারণ কিন্তু সম্পর্কিত চরিত্রে অভিনয় করছেন কিন্তু অপরাজিতা আধ্যা যা পছন্দ করেছিলেন তা হল ছবিতে তার চরিত্রের সরলতা যা অনন্য। সেই কারণেই পাকা অভিনেত্রী জিৎ চক্রবর্তী পরিচালিত ছবিটিতে হ্যাঁ বলতে দ্বিধা করেননি।


অপরাজিতা জোর দিয়ে বলেন কথামৃত কোনও সম্পর্কের জটিলতা নিয়ে নয় পরিবর্তে এটি প্রতিটি সম্পর্কের গভীরে থাকা সরলতার উপর দৃষ্টি নিবদ্ধ করে।


বিবাহের জটিল বিষয়গুলো নিয়ে বেশি ভাববেন না।কথামৃত উত্তর কলকাতার একজন মধ্যবিত্ত বাঙালি দম্পতির হৃদয়গ্রাহী সরল গল্প। আমার চরিত্র সুলেখার তার স্বামী সনাতনের সঙ্গে একটি দুর্দান্ত বোঝাপড়া রয়েছে যিনি কথা বলতে পারেন না এবং এর পিছনে একটি আকর্ষণীয় গল্প রয়েছে। দেখুন আমার বিয়ে থেকে আমি অনেক কিছু শিখেছি। আমি অল্প বয়সে বিয়ে করেছি এবং আমি বুঝতে পেরেছি যে স্বামী এবং স্ত্রীর মধ্যে কথোপকথন এবং ছোট ছোট শব্দগুলি একটি সফল বিবাহিত জীবন এবং একটি কার্যকরী পরিবারের চাবিকাঠি ধরে রাখে। শব্দগুলো সূক্ষ্ম। এটি একটি সুন্দর পারিবারিক জীবনকে ধ্বংস বা নেতৃত্ব দিতে পারে। এই ফিল্মটি দেখায় যে আপনাকে সবসময় কথা বলতে হবে না। একটু চুপচাপ বলার জন্য কিছু সময় নিন এবং সম্পর্কের সারমর্ম অনুভব করুন। এটা থামা বিরতি এবং চিন্তা মত! কথামৃত আপনাকে বুঝতে দেয় যে কিভাবে তিক্ততা আপনাকে খারাপভাবে আঘাত করতে পারে এবং এমনকি একটি সম্পর্ক শেষ করতে পারে। একই সঙ্গে কিছু না বলা এবং নীরব থাকা একটি দম্পতির মধ্যে বন্ধনকে শক্তিশালী করতে পারে ব্যাখ্যা করেন বহুমুখী অভিনেত্রী যিনি দেখে ভাগ্যবান বোধ করেন যে লোকেরা এখনও তাকে একটি চলচ্চিত্রের প্রধান মহিলা চরিত্র হিসাবে দেখছে এবং আকর্ষণীয় বিষয়বস্তুর উত্থান যা গুরুত্ব দেয় নারী চরিত্র।


কৌশিক গাঙ্গুলির সঙ্গে একটি দম্পতি হিসাবে স্ক্রিন ভাগ করে নেওয়ার কথা বলতে গিয়ে অপরাজিতা মনে করেন প্রায় ২০ বছর হয়ে গেছে তারা একটি টেলিফিল্মে অকার্যকর বিবাহিত দম্পতি চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন। আমি মাঝে মাঝে কিছুটা বিভ্রান্ত হই। আমি বুঝতে পারি না কে ভাল। কৌশিক গাঙ্গুলি পরিচালক হিসেবে নাকি অভিনেতা হিসেবে?  অভিনেতা হিসেবে তিনি খুবই সংবেদনশীল। তাই যখন শুনলাম কৌশিক আমার স্বামীর চরিত্রে অভিনয় করবেন সেটাও এমন একটি সংবেদনশীল অথচ সরল সম্পর্কের ছবিতে আমি সঙ্গে সঙ্গে হ্যাঁ বলেছিলাম।  আমি মনে করি লোকেরা আমাদের আরও একবার একসঙ্গে দেখতে পছন্দ করবে অভিনেত্রী যোগ করেছেন।


তিনি জিতের মতো একজন তরুণ প্রতিভাবান পরিচালকের সঙ্গে কাজ করতে পেরেও খুশি তার অল্প বয়স থাকা সত্ত্বেও জিৎ তার অভিনেতাদের কাছ থেকে কি চান সে সম্পর্কে বেশ স্পষ্ট। অভিনয় ফ্লোরে থাকার সময় তিনি খুব শান্ত।

 

আমরা অভিনেত্রীকে জিজ্ঞাসা করেছি যে তার বাস্তব জীবনের বিশাল অভিজ্ঞতা তাকে পর্দায় চরিত্রগুলি এত অনায়াসে অভিনয় করতে সহায়তা করে কিনা। এ প্রসঙ্গে অপরাজিতা বলেন আমি লোকেদের জিজ্ঞাসা করতে শুনেছি যে আমি কিভাবে এত অনায়াসে অনস্ক্রিনে এমন সম্পর্কযুক্ত চরিত্রে অভিনয় করি।  সত্যি বলতে আমাকে অভিনয় করতে হয় না। আমার ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতায় আমি অনেক উত্থান-পতন দেখেছি মানুষের মধ্যে জটিলতা এবং সরলতা। এই কারণেই যখনই আমি অনস্ক্রিন চরিত্রে অভিনয় করি তখন স্বাভাবিকভাবেই আমার কাছে আসে এই চরিত্রগুলোকে জীবন দেওয়া এবং তাদের এতটা সম্পর্কযুক্ত করে তোলা।


এদিকে কথামৃত ছাড়াও অপরাজিতা যিনি ছোট পর্দায় একজন পরিচিত মুখ তার লাইনআপে আরও দুটি ছবি রয়েছে  পিবি চাকির লাভ ম্যারেজ এবং রাহুল মুখার্জির দিলখুশ।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad