লক্ষ টাকার ব্রিজ চুরি, অবগত নয় প্রশাসন - Breaking Bangla |breakingbangla.com | Only breaking | Breaking Bengali News Portal From Kolkata |

Breaking

Post Top Ad

Wednesday, 4 May 2022

লক্ষ টাকার ব্রিজ চুরি, অবগত নয় প্রশাসন



বিহারের বাঙ্কায় লোহার সেতু থেকে লোহা চুরি।  বেইলি ব্রীজ ২০০৮ সালে প্রায় ৪৫ লাখ টাকা ব্যয়ে নির্মিত হয়, যার ৪০% লোহা চুরি হয়ে গেছে।   খবর আসার পরই ক্ষমতায় নেমেছে প্রশাসন।  সেতু ও চোরদের ওপর নজর রাখছে চন্দন থানার পুলিশ।  এই বেইলি ব্রিজটি ব্রিজ কর্পোরেশন তৈরি করেছে।  এখন খুব শিগগিরই এই লোহার সেতুটি নিলামে তোলা হবে।


 বাঁকা চন্দন পানখণ্ডের কানওয়ারিয়া পথে ঝাঝা বাঁধের কাছে নির্মিত বেইলি সেতুর উদ্বোধন 13 আগস্ট ২০০৮ সালে সড়ক নির্মাণ বিভাগের মন্ত্রী ডক্টর প্রেম কুমার এবং মৎস্য ও পশুসম্পদ মন্ত্রী রাম নারায়ণ মণ্ডলের সভাপতিত্বে সম্পন্ন হয়েছিল।  বিশেষ অতিথি ছিলেন গিরিধারী যাদব ও সাংসদ রাজ কিশোর প্রসাদ।  কিন্তু এখন অবস্থা এমন যে, এই বেইলি ব্রিজের প্রায় অর্ধেকই চোরেরা চুরি করে নিয়েছে।


 কয়েকদিন আগে বিহারের আরও অনেক জেলায় ব্রিজ চুরির ঘটনা সবাইকে চমকে দেয়। এই ঘটনার পর বিহারে এবং বহু জেলা থেকে সেতুর লোহা চুরির কথা উঠেছিল। এখন একই রকম একটি ঘটনা দেখা যাচ্ছে চোরের উপদ্রব এতটাই বেশি যে তারা সরকারি সম্পত্তিতে হাত পরিষ্কার করছে।


 এখানেও চোরেরা লোহার সেতু টুকরো টুকরো করে চুরি করছে।  কিন্তু প্রশাসনও এ বিষয়ে অবগত ছিল না।  


 এই ব্রিজ প্রায় ৬০ ফুট দীর্ঘ একটি লোহার সেতু,  যা চোরেরা গ্যাস কাটার দিয়ে কেটে উধাও করে দিয়েছে।  কানওয়ারিয়া পথের ঝাঝা এবং পাটনিয়ান ধর্মশালাকে সংযোগ করার জন্য এই সেতুটি তৈরি করা হয়েছিল।


  আসলে, বিহারে ভয়াবহ বন্যার সময়, কানওয়ারিয়াকে বিশ্ব বিখ্যাত শ্রাবণী মেলায় ঝাঝা গ্রাম থেকে পাটানি ধর্মশালায় যেতে একটি বড় জলাশয়ের মধ্য দিয়ে যেতে হয়।  সেজন্যই এখানে সেতু নির্মাণের দাবী উঠেছিল।


 কানওয়ারিয়ার সুবিধার কথা মাথায় রেখে এই সেতুটিকে তৎকালীন ডিএম বেইলি ব্রিজ হিসেবে নির্মাণ করেছিলেন।  সেতু নির্মাণের পর কানওয়ারিয়া বাবা ধামের যাতায়াত খুবই সহজ হয়ে যায়।  পরবর্তীতে নতুন কানওয়ারিয়া পথ নির্মাণের পর এসব সেতু সম্পূর্ণ অকেজো হয়ে পড়ে, পাশাপাশি কয়েকটি গ্রামে যাওয়ার জন্য একটি পাকা সেতুও নির্মাণ করা হয়।  

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad