ডায়াবেটিসের জন্য মুখের এই ৪টি স্বাস্থ্য সমস্যা হতে পারে - Breaking Bangla |breakingbangla.com | Only breaking | Breaking Bengali News Portal From Kolkata |

Breaking

Post Top Ad

Wednesday, 12 January 2022

ডায়াবেটিসের জন্য মুখের এই ৪টি স্বাস্থ্য সমস্যা হতে পারে



ডায়াবেটিসের কারণে মুখের সমস্যাগুলো কী কী?  ডায়াবেটিসের কারণে মাড়ি ফুলে যাওয়া, পায়েরিয়া, শুষ্ক মুখ, মুখে ছত্রাক, ব্যাকটেরিয়াল ইনফেকশন, মুখ ফুলে যাওয়া ইত্যাদি সমস্যা দেখা দেয়, তাই ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখতে হবে এবং এই রোগ এড়িয়ে চলতে হবে।  ডায়াবেটিসের সময় অল্প ব্যবধানে ওরাল চেকআপ করা প্রয়োজন।  যদি আপনার মাড়িতে ব্যথা বা ফুলে যায় বা দাঁত থেকে রক্তপাত হয় তবে আপনার অবিলম্বে ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করা উচিৎ।  এই নিবন্ধে, আমরা জানব কীভাবে ডায়াবেটিস মুখের স্বাস্থ্যকে প্রভাবিত করে এবং কীভাবে এটি এড়ানো যায়।  এই বিষয়ে আরও তথ্যের জন্য, আমরা ডাঃ সীমা যাদবের সাথে কথা বলেছি, এমডি চিকিৎসক, কেয়ার ইনস্টিটিউট অফ লাইফ সায়েন্সেস, লখনউ৷




 ডায়াবেটিসে দাঁতে ক্যাভিটি হওয়ার সম্ভাবনা আছে কি?  




 কিছু বিশেষজ্ঞ বিশ্বাস করেন যে ডায়াবেটিস রোগীরা তাদের খাবার নিয়ন্ত্রণ করে, তাই তাদের দাঁতে গহ্বরের ঝুঁকি থাকে না, তবে কিছু বিশেষজ্ঞ বিশ্বাস করেন যে ডায়াবেটিসে গ্লুকোজের মাত্রা বৃদ্ধির কারণে মুখের লালা এবং গহ্বরের মাধ্যমে ব্যাকটেরিয়া বৃদ্ধি পেতে শুরু করে। দাঁতে সে যায়।  যাদের ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে নেই তাদেরও তাড়াতাড়ি দাঁত ভাঙার প্রবণতা রয়েছে কারণ উচ্চ রক্তে শর্করার মাত্রা দাঁতের রোগ যেমন জিঞ্জিভাইটিস এবং পিরিয়ডোনটাইটিস রোগ, দাঁত দুর্বল হয়ে যাওয়া এবং অকালে ভেঙ্গে যায়।  ডায়াবেটিসে মুখের সাথে সম্পর্কিত অন্যান্য রোগও হতে পারে যেমন-




 1. ডায়াবেটিসে শুষ্ক মুখের ঝুঁকি




 যারা ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করেন না তাদের মুখের শুষ্ক সমস্যা হয়।  ডায়াবেটিসে শুষ্ক মুখ মানে শুষ্ক মুখ বা মুখের লালা কম।  রক্তে শর্করার মাত্রা বেড়ে যাওয়ার কারণে লালা কমে যায়, যার কারণে মুখে শুষ্কতা অনুভূত হয়।  শুষ্ক মুখের কারণে ইনফেকশন, আলসার, দাঁত নষ্ট হওয়ার মতো সমস্যা দেখা দেয়।




 2. ডায়াবেটিসে পিরিয়ডোনটাইটিসের ঝুঁকি




 পিরিওডোনটাইটিস হল এক ধরনের ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ যাতে মাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয় এবং চোয়ালের হাড় সংক্রান্ত সমস্যা শুরু হয়।  তবে সময়মতো চিকিৎসা নিলে এই রোগ নিরাময়যোগ্য।  পিরিয়ডোনটাইটিসের কারণে দাঁত ভাঙতে শুরু করে এবং এই রোগ ডায়াবেটিস রোগীদের বেশি দেখা যায়।




 3. ডায়াবেটিসে থ্রাশের ঝুঁকি




 যাদের ডায়াবেটিস আছে এবং যারা বেশি অ্যান্টিবায়োটিক খান তাদের জিহ্বা ও মুখে সংক্রমণের ঝুঁকি বেশি।  সংক্রমণের কারণে তাদের মুখে ও জিভে জ্বালাপোড়ার সমস্যাও রয়েছে।  লালায় অতিরিক্ত গ্লুকোজের কারণে ছত্রাক বৃদ্ধি পায়।




 4. ডায়াবেটিসে জিনজিভাইটিসের ঝুঁকি




 ডায়াবেটিসে মাড়ির প্রদাহ অর্থাৎ জিনজিভাইটিস সমস্যা হয়।  ফুলে যাওয়া মাড়িও পুষ্টির ঘাটতি হতে পারে।  যাদের ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ নেই তাদের মধ্যে এই সমস্যা বেশি দেখা যায়।  মুখ সংক্রান্ত সমস্যা হার্ট এবং ফুসফুসেও প্রভাব ফেলে।  মাড়ির রোগের লক্ষণগুলো কী কী?  ডাঃ সীমা জানান, মাড়ির রোগের কারণে মাড়ি লাল হয়ে যায়, ফুলে যায় বা রক্তপাত শুরু হয়।  এ ধরনের লক্ষণ দেখা গেলে দ্রুত চিকিৎসকের কাছে যান।




ডায়াবেটিসের সময় লালায় গ্লুকোজ বেড়ে গেলে মুখে সংক্রমণ হয়।




 ডায়াবেটিস রোগীদের দাঁত, মাড়ি, জিহ্বায় সংক্রমণ বা রোগের প্রবণতা বেশি।  যাদের ডায়াবেটিস আছে তাদের রক্তে গ্লুকোজের পরিমাণ বেশি থাকে।  আমাদের রক্তের পাশাপাশি মুখের লালায়ও গ্লুকোজ থাকে, ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে না থাকলে লালায় গ্লুকোজের পরিমাণও বেড়ে যায় এবং মুখের মধ্যে ব্যাকটেরিয়া তৈরি হতে থাকে।  ব্যাকটেরিয়া সারা মুখে ছড়িয়ে পড়ে, যা দাঁত, জিহ্বা এবং মাড়িকে প্রভাবিত করে।  মুখের ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণও ডায়াবেটিসের কারণ কারণ ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণের অভাবে শ্বেত রক্ত ​​কণিকা কমে যায় যা আপনাকে ব্যাকটেরিয়ার সংক্রমণ থেকে রক্ষা করে, তাই WBC সংক্রমণ কম হয়।




 ডায়াবেটিসে মুখের স্বাস্থ্যের রোগগুলি কীভাবে প্রতিরোধ করা যায়




 আপনার যদি ডায়াবেটিস থাকে, তবে মুখের রোগ এড়াতে এই টিপসগুলি অনুসরণ করুন-




 আপনার যদি ডায়াবেটিস থাকে এবং সুগারের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে না থাকে, তাহলে আপনার দাঁতের চিকিৎসা স্থগিত রাখুন কিন্তু যদি জরুরি অবস্থায় চিকিৎসা করানো হয়, তাহলে অবিলম্বে করান।




 মুখের স্বাস্থ্য ভালো রাখতে দিনে দুবার ব্রাশ করুন, সম্ভব হলে প্রতিবার খাবার পর ব্রাশ করা উচিৎ।




 আপনার ফ্লোরাইডযুক্ত টুথপেস্ট ব্যবহার করা উচিৎ এবং ফ্লস ব্যবহার করা উচিৎ।




 আপনার অবশ্যই বছরে দুই থেকে তিনবার ডেন্টিস্টের কাছে যাওয়া উচিৎ এবং আপনার দাঁত পরীক্ষা করানো উচিৎ।




 ডায়াবেটিসে মুখের সমস্যা এড়াতে, খাওয়ার পরে ধুয়ে ফেলতে ভুলবেন না।




 খাওয়ার পর ভালো মাউথওয়াশ ব্যবহার করুন।




 আপনার যদি ডায়াবেটিস থাকে এবং আপনি একটি ডেনচার লাগান, তাহলে তা বের করে প্রতিদিন পরিষ্কার করুন।




 প্রতি দুই মাসে অন্তত একবার ব্রাশ পরিবর্তন করুন।


 


 মৌখিক স্বাস্থ্য সমস্যা প্রতিরোধে ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করুন




 ডায়াবেটিসের কারণে শুধু মুখ নয় চোখ, হার্টের স্বাস্থ্য, কিডনি, স্নায়ুর ওপরও খারাপ প্রভাব পড়ে, তাই ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণ করা খুবই জরুরি।  মুখের রোগ এড়াতে-




 আপনার ওজন কমানো উচিৎ যাতে আপনার ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে থাকে।




 মুখ সংক্রান্ত সমস্যা এড়াতে স্বাস্থ্যকর খাবার গ্রহণ করা উচিৎ যাতে রক্তে শর্করার মাত্রা খুব বেশি না বেড়ে যায়।




 অ্যালকোহল এবং ধূমপান একেবারেই করবেন না।




 সিগারেট ধূমপান মাড়িতে রক্ত ​​​​প্রবাহকে প্রভাবিত করে, তাই আপনার সিগারেট এড়ানো উচিৎ।




 অত্যধিক দুশ্চিন্তা বা মানসিক চাপও ডায়াবেটিস বাড়াতে কাজ করে, তাই মানসিক চাপমুক্ত থাকতে মেডিটেশন করুন।




 আপনার ডায়াবেটিসের মাত্রা সম্পর্কে আপনার ডেন্টিস্টকেও বলা উচিৎ কারণ কিছু মৌখিক চিকিৎসার সময় আপনার রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখা গুরুত্বপূর্ণ, তাই আরও বিস্তারিত জানার জন্য আপনার দাঁতের ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করুন।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad