জেনে নিন পেডিয়াট্রিক ইমার্জেন্সি রুম কী তার সম্পর্কে - Breaking Bangla |breakingbangla.com | Only breaking | Breaking Bengali News Portal From Kolkata |

Breaking

Post Top Ad

Saturday, 15 January 2022

জেনে নিন পেডিয়াট্রিক ইমার্জেন্সি রুম কী তার সম্পর্কে




ছোট শিশুরা বড়দের মতো কথা বলে তাদের ব্যথা বা অস্বস্তি প্রকাশ করতে পারে না।  তাদের কিছু সমস্যা আছে, তা শুধু বাচ্চাদের কান্নাকাটি বা কিছু না খাওয়া-দাওয়া থেকেই অনুমান করা যায়।  


যদি শিশুটি খুব খিটখিটে হয়ে থাকে, তবে ডাক্তারের পক্ষে তাকে পরীক্ষা করাও কঠিন হয়ে পড়ে।  কিছু পেডিয়াট্রিক জরুরী অবস্থা যা দুর্ঘটনা বা শারীরিক অবস্থার সাথে সম্পর্কিত এবং যদি তাদের ব্যবস্থাপনা বিলম্বিত হয়, তবে শিশুর জন্য জীবন-হুমকি হতে পারে।  শিশুকে সুস্থ করতে শুধু ভালো ডাক্তারই নয়, দরকার ভালো পরিবেশ ও ভালো টিম।



উদাহরণস্বরূপ, উচ্চতা থেকে পড়ে শিশুর ফুলে যাওয়া এবং আঘাতের কারণ হতে পারে।  তবে অভ্যন্তরীণভাবেও তিনি এমন আঘাতের শিকার হতে পারেন যা বাইরে থেকে দেখা যায় না।  তাই, আঘাতের পুঙ্খানুপুঙ্খ পরীক্ষা করার জন্য সিটি স্ক্যান করানো বা সম্পূর্ণ পরীক্ষা করা খুবই প্রয়োজন হয়ে পড়ে।



যেহেতু বেশিরভাগ শিশু বাড়িতে থাকে, তাই আজকাল তাদের আঘাত খুব বেশি হয়ে গেছে।  শিশুটি ছোট হলে মুখে বা নাকে যেকোনো কিছু দিতে পারে।  কর্পূর ট্যাবলেটের মতো বস্তু শিশুর মুখে গিয়ে অনেক ক্ষতি করতে পারে।  ক্রমবর্ধমান শিশুরাও নিজেদের ওপর মশা তাড়ানোর ওষুধ স্প্রে করে।  বাচ্চাদের এমন ওষুধ দেওয়া যাবে না যে তা খেলে তাদের পেট থেকে সমস্ত বিষাক্ত পদার্থ বমির মাধ্যমে বেরিয়ে যেতে পারে কারণ এই জাতীয় জিনিস শিশুদের জন্যও ক্ষতিকর হতে পারে।  এই ধরনের পরিস্থিতিতে, একজনকে অবিলম্বে বিশেষজ্ঞদের চেয়ে জরুরি যত্ন শিশুরোগ বিশেষজ্ঞের (শিশুরোগ বিশেষজ্ঞ) কাছে যাওয়া উচিৎ।


পেডিয়াট্রিক ইমার্জেন্সি রুমের মধ্যে রয়েছে রক্তচাপ পরীক্ষা, কফ, নাক ও কান অপসারণের যন্ত্র এবং একটি দল যা শিশুকে তাদের শরীর অনুযায়ী ওষুধ দিতে সাহায্য করে।


চিকিৎসক গীতা জয়পতি বলেন, শিশু সহজেই তার কানে, নাকে ও মুখে বাইরে রাখা কিছু জিনিস রাখতে পারে।  সময়মতো শিশুর নাক-কান থেকে এসব জিনিস সরিয়ে ফেললে দীর্ঘমেয়াদে ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা পাওয়া যায়।  এ অবস্থায় শিশুর আক্রান্ত স্থান সম্পূর্ণরূপে পরিষ্কার করা এবং তাদের ব্যথা উপশমের ওষুধ দেওয়ার জন্য বিশেষজ্ঞের মতামত নেওয়া খুবই জরুরি।  এই ধরনের পরিস্থিতিতে, শিশুকে নিরাপত্তার সাথে পরিচালনা করাও একটি দক্ষতা।  যা সময় এবং অভিজ্ঞতার সাথে বিকশিত হয়।


শিশুদের চিকিৎসা, মনস্তাত্ত্বিক এবং উন্নয়নমূলক চাহিদা প্রাপ্তবয়স্কদের থেকে আলাদা।  পেডিয়াট্রিক ইমার্জেন্সি রুমের মধ্যে রয়েছে রক্তচাপ পরীক্ষা, কফ, নাক ও কান অপসারণের যন্ত্র এবং একটি দল যা শিশুকে তাদের শরীর অনুযায়ী ওষুধ দিতে সাহায্য করে।  এই কক্ষগুলির বেশিরভাগই নিউরোসার্জারি, ইউরোলজি, ইএনটি ইত্যাদি রয়েছে।  শিশুদের মধ্যে উদ্ভূত জরুরী পরিস্থিতি পরিচালনা করার জন্য নিরাপত্তার যত্ন নেওয়া খুবই গুরুত্বপূর্ণ।  শিশুর পিতামাতার জন্য আগে থেকেই এমন একটি জরুরি কক্ষ খুঁজে বের করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ, যেখানে সমস্ত সুযোগ-সুবিধা পাওয়া যায় যাতে জরুরী সময়ে অনেক সময় নষ্ট না হয়। 


এই ধরনের জরুরি কক্ষে পরামর্শের জন্য সরাসরি ফোন কল করার সুবিধাও রয়েছে।  আগে থেকে চিকিৎসকের পরামর্শ নিলে সময়ের দুশ্চিন্তা এবং পরবর্তী করণীয় এড়ানো যায়।  অ্যাম্বুলেন্স সুবিধার পাশাপাশি এই জাতীয় শিশু বিশেষজ্ঞের সুবিধা দেওয়ার জন্য আগে থেকেই ডাক্তারের নম্বর পান।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad