আপনি যদি মোবাইল ছাড়া থাকতে পারছেন না,তবে এই রোগের খুব কাছাকাছি আছেন আপনি - Breaking Bangla |breakingbangla.com | Only breaking | Breaking Bengali News Portal From Kolkata |

Breaking

Post Top Ad

Sunday, 26 December 2021

আপনি যদি মোবাইল ছাড়া থাকতে পারছেন না,তবে এই রোগের খুব কাছাকাছি আছেন আপনি




 বর্তমান সময়ে স্মার্টফোন ব্যবহার করেন না এমন মানুষ কমই থাকবেন।  কিন্তু কিছুক্ষণ স্মার্টফোন ছাড়া থাকার পর যদি কারও শরীর খারাপ হতে শুরু করে বা ফোন থেকে দূরে থাকার চিন্তায় ঘাম ঝরতে শুরু করে, তাহলে তা মারাত্মক মস্তিষ্কের রোগের লক্ষণ হতে পারে।  বিশেষজ্ঞরা বেশ কিছুদিন ধরেই এই রোগ সম্পর্কে সতর্ক করে আসছেন।




 উল্লেখযোগ্যভাবে, বর্তমান সময়ে আমাদের জীবন স্মার্টফোনের উপর নির্ভর করে।  খাওয়া থেকে কথা বলা বা তথ্য পাওয়া থেকে আমরা মোবাইলের ওপর নির্ভরশীল হয়ে পড়েছি।  এমতাবস্থায় মোবাইল ফোন না থাকায় চিন্তিত হওয়াটাই স্বাভাবিক।  কিন্তু নোমোফোবিয়া নামের এই মস্তিষ্কের রোগে মোবাইল ফোন না থাকার কারণে আপনার এত সমস্যা হয় যে আপনার জীবন প্রভাবিত হতে থাকে।  আসুন জেনে নিন নোমোফোবিয়া কি?




 


 হেলথলাইনের মতে, চিকিৎসা বিজ্ঞানে এমন ভয় বা উদ্বেগকে একটি ফোবিয়া বলা হয়েছে, যার কারণে আপনার দৈনন্দিন জীবনে ব্যাঘাত ঘটতে শুরু করে।  Pubmed.gov-এ প্রকাশিত একটি প্রতিবেদন অনুসারে, নোমোফোবিয়া হল 'নো মোবাইল ফোন ফোবিয়া'-এর সংক্ষিপ্ত রূপ।  যা মোবাইল ফোন থেকে দূরে চলে যাওয়ার দুশ্চিন্তার সঙ্গে যুক্ত মানসিক অবস্থার কথা বলে। 






 নোমোফোবিয়ায়, একজন ব্যক্তির মোবাইল ফোন না থাকার কারণে বা মোবাইল নেটওয়ার্ক হারানো বা মোবাইল থেকে দূরে থাকার কারণে তীব্র উদ্বেগ, ভয় ইত্যাদির অনুভূতি হতে পারে।  এর কারণে তার দৈনন্দিন জীবনও প্রভাবিত হতে পারে এবং খাবার খাওয়া, খুশি হওয়া বা পর্যাপ্ত ঘুমের মতো দৈনন্দিন কাজগুলি সম্পাদন করতে তার অসুবিধা হতে পারে।  সহজ ভাষায় এই মনস্তাত্ত্বিক সমস্যাকে 'মোবাইল আসক্তি'র মারাত্মক রূপও বলা যেতে পারে।








 পাবমেডে প্রকাশিত দ্বিতীয় গবেষণায়, দেশের মেডিক্যাল ছাত্রদের নোমোফোবিয়া নিয়ে গবেষণা করা হয়েছিল।  এতে ১৪৫ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করে।  ডিসেম্বর ২০১৫ থেকে ফেব্রুয়ারী ২০১৬ পর্যন্ত পরিচালিত এই সমীক্ষায় ১৭.৯ শতাংশ শিক্ষার্থীর মধ্যে নোমোফোবিয়ার হালকা লক্ষণ, ৬০ শতাংশ শিক্ষার্থীর মধ্যে মাঝারি উপসর্গ এবং ২২.১ শতাংশ মেডিক্যাল শিক্ষার্থীদের মধ্যে নোমোফোবিয়ার গুরুতর লক্ষণ দেখা গেছে।  এর মাধ্যমে এই মানসিক রোগ যুবকদের কতটা গ্রাস করতে পারে তার একটা ধারণা পাওয়া যাবে।




 


নোমোফোবিয়ার লক্ষণ


 হেলথলাইনের একটি প্রতিবেদন অনুসারে, নোমোফোবিয়া ডায়াগনস্টিক অ্যান্ড স্ট্যাটিস্টিক্যাল ম্যানুয়াল অফ মেন্টাল ডিসঅর্ডার (DSM-5) এর নতুন সংস্করণে তালিকাভুক্ত নয়।  কারণ, মানসিক বিশেষজ্ঞরা এখনও এই সমস্যাটি বিস্তারিতভাবে অধ্যয়ন করতে পারেননি।  কিন্তু পাবমেড-এ প্রকাশিত সমীক্ষা অনুসারে, ফোন থেকে দূরে চলে যাওয়ার ভয়ের কারণে এই মানসিক সমস্যা নিম্নলিখিত সম্ভাব্য লক্ষণগুলির কারণ হতে পারে।  যেমন-




 উদ্বিগ্ন হচ্ছে


 শ্বাসকষ্ট


 কাঁপুনি


 ঘাম


 মনোযোগের অভাব


 নার্ভাসনেস


 অত্যধিক হৃদস্পন্দন, ইত্যাদি


 




 নোমোফোবিয়ার ঝুঁকির কারণ


 উপরে উল্লিখিত নোমোফোবিয়ার লক্ষণগুলো দেখা যায় মোবাইল ফোন থেকে দূরে চলে যাওয়ার ভয় থেকে।  কিন্তু আপনি দৈনন্দিন জীবনেও শনাক্ত করতে পারেন যে আপনি নোমোফোবিয়ার ঝুঁকিতে আছেন কি না।  কারণ হেলথলাইন অনুসারে, নিম্নলিখিত অভ্যাসযুক্ত ব্যক্তিদের নোমোফোবিয়া হওয়ার ঝুঁকি থাকতে পারে।  যেমন-




 সর্বদা আপনার সঙ্গে একটি মোবাইল ফোন নিয়ে ঘুরা, যেমন টয়লেটে বা স্নান করার সময়।


 প্রতি দুই মিনিট পর পর মোবাইল ফোন চেক করা, কোনও নোটিফিকেশন আসছে কি না।


 দিনে খুব বেশি সময় ধরে স্মার্টফোন ব্যবহার করা।


 একটি মোবাইল ফোন ছাড়া অসহায় বোধ।


 এমনকি পরিবার বা সঙ্গীর সাথে থাকলেও সর্বদা ফোন ব্যবহার করা।


 চার্জ করার সময় মোবাইল ফোন ব্যবহার করা ইত্যাদি।








 নোমোফোবিয়া দ্বারা সৃষ্ট অন্যান্য রোগ




 মেরুদণ্ডের বাঁক


 কম্পিউটার ভিশন সিন্ড্রোম


 পাঠ্য ঘাড়


 ফুসফুসের ক্ষমতা হ্রাস


 ঘুমিয়ে পড়তে সমস্যা


 বিষণ্নতা, ইত্যাদি








 কীভাবে নোমোফোবিয়া বা মোবাইল আসক্তি প্রতিরোধ করা যায়


 হেলথলাইন অনুসারে, নোমোফোবিয়া বা মোবাইল আসক্তি কাটিয়ে উঠতে নিম্নলিখিত টিপসগুলি গ্রহণ করা যেতে পারে।  যেমন-




 রাতে ঘুমানোর অন্তত ১ ঘণ্টা আগে মোবাইল, ল্যাপটপ ছেড়ে দিন।


 ঘুমানোর সময় মোবাইল দূরে রাখুন।


 ২-৩ মাস পর, ৭ দিনের জন্য নিজেকে সোশ্যাল মিডিয়া থেকে দূরে রাখুন।


 পরিবার বা সঙ্গীর সঙ্গে সময় কাটানোর সময় মোবাইল ফোন ব্যবহার করবেন না।


 দিনে মাত্র একবার মোবাইল চার্জ করার লক্ষ্য করুন।


 যে অ্যাপগুলিতে আপনি অনেক সময় ব্যয় করেন সেগুলি মুছুন।


 অন্যান্য বিষয় সম্পর্কে সচেতন হন।


 মোবাইল ফোনটি কিছু সময়ের জন্য বাড়িতে রেখে বাজারে বের হন।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad