দেশের বৈচিত্র্যময় সংস্কৃতিতে পূর্ন মধ্যপ্রদেশ - Breaking Bangla |breakingbangla.com | Only breaking | Breaking Bengali News Portal From Kolkata |

Breaking

Post Top Ad

Saturday, 16 October 2021

দেশের বৈচিত্র্যময় সংস্কৃতিতে পূর্ন মধ্যপ্রদেশ

 


মধ্যপ্রদেশ দেশের বৈচিত্র্যময় সংস্কৃতি এবং ঐতিহ্য সংরক্ষণ করে। যার মধ্যে একটি হল বুরহানপুর জেলা, যেখানে আপনি দেখার মতো অনেক জায়গা পাবেন। আজকে আসিরগড় দুর্গের সম্পর্কে আমরা বলবো।


 ঐতিহাসিক এবং দুর্ভেদ্য অসিরগড় দুর্গটি ইন্দোর-ইছাপুর মহাসড়কের পাশে সাতপুরার উঁচু পাহাড়ে অবস্থিত।  এর প্রথম অংশকে বলা হয় মলয়গড়, দ্বিতীয় অংশকে বলা হয় কামারগড় এবং উপরের অংশটিকে বলা হয় অসিরগড়।  রহস্যে ভরা এই দুর্গ সবাইকে আকৃষ্ট করে।



  এই রাজারা শাসন করতেন


 কথিত আছে যে ১৩৭৫ খ্রিস্টাব্দের পূর্বে, আশা আহির নামে একজন ব্যক্তি এই দুর্গে পশুপালন করতেন।  এই কারণে, তাঁর কাছে এত টাকা জমা হয়েছিল যে কাছের রাজারা তাঁর কাছ থেকে ঋণ নিতেন। এই খবর যখন খান্দের সুলতান নাসির খান ফারুকীর কাছে আসে, তখন সে প্রতারণা করে দুর্গ দখল করে নেয়।


 এভাবে দুর্গ ফারুকী রাজাদের নিয়ন্ত্রণে চলে আসে। ২০০ বছর ধরে ফারুকী রাজবংশ এখান থেকে শাসন করেছিল। ১৬০১ সালে মুঘল সম্রাট আকবর দুর্গটি দখল করে নেন এবং তার পর এখান থেকে মুঘলদের দক্ষিণ ভারত বিজয় শুরু হয়।  দুর্গটি ১৭৩১ পর্যন্ত মুঘলদের হাতে ছিল। এর পরে এটি নিজাম হায়দ্রাবাদের দখলে চলে যায়। ১৮০০ খ্রিস্টাব্দে, এই দুর্গটি মারাঠাদের দ্বারা আধিপত্য বিস্তার করে এবং ১৮৩০ সালের দিকে এটি সিন্ধিয়া পরিবার দ্বারা দখল করা হয়।  ১৮৫৭ সালের মধ্যে এটি ব্রিটিশদের হাতে চলে যায়।


 ইতিহাস সাক্ষী যে ব্রিটিশরা সমগ্র মালওয়া প্রদেশ, দক্ষিণ ভারত এবং মহারাষ্ট্রের মতো রাজ্যগুলি এখান থেকে নিয়ন্ত্রণ করেছিল।  ব্রিটিশরা ১৯০৬ সালে এটি খালি করে দেয়। তারপর থেকে এর উপর কারোরই কোনও অধিকার নেই এবং সেখান থেকেই এই দুর্গের ধ্বংসের কাহিনী শুরু হয়।  আজও এটি ভারতের প্রধান দুর্গগুলির মধ্যে গণ্য হয়।  দেশ ছাড়াও বিদেশ থেকেও পর্যটকরা এটি দেখতে আসেন এবং এর ইতিহাস এবং রহস্যের সঙ্গে পরিচিত হন।  পর্যটকরাও এখানে অ্যাডভেঞ্চারের জন্য আসেন।  পাহাড়ের উপর হওয়ায় এটি ট্রেকিং উৎসাহীদের আকর্ষণ করে।


 কিভাবে এবং কখন যেতে হবে


 ১৯০ কিলোমিটার দূরে ইন্দোর এখানে আসার নিকটতম বিমানবন্দর।  সেখান থেকে সড়ক পথে বাসে অথবা ব্যক্তিগত পথে আসা যায়।  শীত ও বর্ষাকাল এখানে আসার সঠিক সময়।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad