বন্ধ নাকের উপশমের জন্য কিছু সহজ পদ্ধতি - Breaking Bangla |breakingbangla.com | Only breaking | Breaking Bengali News Portal From Kolkata |

Breaking

Post Top Ad

Friday, 1 October 2021

বন্ধ নাকের উপশমের জন্য কিছু সহজ পদ্ধতি





নিউজ ডেস্ক: ঠান্ডা লাগলে ও শীতকালে অথবা সর্দি, ফ্লুর কারণে প্রায়ই লোকেদের নাক বন্ধ হয়ে যায়। এই নাক বন্ধ হওয়ার সমস্যায় শিশু থেকে বয়স্ক সকলেই কষ্ট পায়।


 বিশেষ করে, রাতে ঘুমানোর সময়  সঠিকভাবে শ্বাস নিতে না পারার কারণে , ঘুম বারবার ভেঙে যায়। আসলে নাকের অতিরিক্ত শ্লেষ্মা জমে থাকার কারণে নাক বন্ধ হয়ে যায় এবং এটি বেশ অস্বস্তিকর।


 কিন্তু, বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এটি আসলে সাইনাসে রক্তনালীর প্রদাহের কারণে হয়, যা ঠান্ডা, অ্যালার্জি বা ফ্লু দ্বারা হতে পারে।  কখনও কখনও এটি সাইনাস সংক্রমণের কারণেও হয়। 


বন্ধ নাকের লক্ষণ এবং এই সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়ার জন্য সেরা এবং সহজ ঘরোয়া প্রতিকার সম্পর্কে চলুন জেনেনি:-



 বন্ধ নাকের লক্ষণ দেখা যায়:-


 অবরুদ্ধ নাকের সমস্যা শিশু এবং বয়স্কদের মধ্যে বেশি ঝামেলাপূর্ণ। নাক বন্ধ থাকলে, বিশেষ করে শিশুদের জন্য একটি গুরুতর। কারণ শ্বাস নিতে অসুবিধে হয়।


নাক বন্ধ প্রায়ই কাশি, হাঁচি, শ্বাস নিতে অসুবিধা, সাইনাস ব্যথা, অনুনাসিক অংশে শ্লেষ্মা জমে যাওয়া, চোখের জল , কণ্ঠস্বর, মাথাব্যথা, হালকা জ্বর সহ অন্যান্য উপসর্গ সৃষ্টি করে।



অনেক কার্যকর ঘরোয়া প্রতিকার রয়েছে সেগুলি হলো :-


 আপেল সিডার ভিনেগার :-


  আপেল সিডার ভিনেগার অন্যতম সেরা ঘরোয়া প্রতিকার।  এজন্য এক কাপ গরম জলে দুই টেবিল চামচ আপেল সিডার ভিনেগার মিশিয়ে ওতে ১ চা চামচ মধু দিয়ে, এই টনিকটি দিনে দুবার খেতে হবে। তাহলে বন্ধ নাক খুলে যাবে।


  প্রকৃতপক্ষে, আপেল সিডার ভিনেগারে উচ্চ পটাসিয়াম উপাদান রয়েছে, যা শ্লেষ্মা পাতলা করতে সাহায্য করে।  এছাড়াও, এতে উপস্থিত অ্যাসিডিক অ্যাসিড ব্যাকটেরিয়ার বৃদ্ধি রোধ করে এবং নিরাময় প্রক্রিয়া ত্বরান্বিত করে।



 উষ্ণ সংকোচন: -


শ্লেষ্মা পাতলা রাখার আরেকটি কার্যকর উপায় হল গরম জলে ভেজানো কাপড় দিয়ে নাক ভিজিয়ে রাখা।  এই কারণে, নাকে জমে থাকা শ্লেষ্মা সহজে বেরিয়ে আসে।  এটি নাকের ফোলাভাব দূর করতেও সাহায্য করে।  এর জন্য গরম জলে একটি তোয়ালে ডুবিয়ে রেখে, এবার তোয়ালে চেপে জল বের করে নিয়ে, তোয়ালে ভাঁজ করে নাক এবং কপালে রাখতে হবে। এই প্রক্রিয়া টি তিন থেকে চার বার করতে হবে।




 রসুন বন্ধ নাক থেকে স্বস্তি দেয়:-


 রসুন একটি অবরুদ্ধ নাক খোলার একটি কার্যকর প্রতিকার।  রসুনের ডিকনজেস্ট্যান্ট এবং কফরোধক বৈশিষ্ট্য রয়েছে, যা নাক বন্ধ হয়ে যাওয়ার বাধা দূর করে।  এটি প্রদাহজনক উপসর্গ কমাতে এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা শক্তিশালী করতেও সাহায্য করে।  রসুন সংক্রমণের বিরুদ্ধে লড়াইয়েও সাহায্য করে।


 রসুন ব্যবহারের পদ্ধতি :-


 ১. ১ কাপ জল ফুটিয়ে নিন।  এতে ২-৪ কোয়া রসুন ও লবঙ্গ রাখুন।  কম আঁচে ৩ মিনিট ফুটিয়ে নিয়ে, এবার আধা চা চামচ হলুদ গুঁড়ো দিয়ে নাড়ুন। এতে গোলমরিচের গুঁড়ো দিতে পারেন।  এই স্যুপ দিনে দুবার পান করুন।



২. ৩-৫ কোয়া রসুনের ও লবঙ্গের পেস্ট তৈরি করুন।  এতে ২ চা চামচ মধু যোগ করুন।  এটি দিনে ২ থেকে ৩ বার খান।  বন্ধ নাক খোলার জন্য এটি একটি প্যানাসিয়া চিকিৎসা।



আদা :-


 আদাতে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে প্রদাহরোধী বৈশিষ্ট্য, যা বন্ধ নাকের সমস্যা কমাতে সাহায্য করে।  এটি শ্লেষ্মা শিথিল করে এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।



 আদা ব্যবহারের পদ্ধতি :-


 এক কাপ জলে ১ চা চামচ কুচি করা আদা দিয়ে এবং ৫-১০ মিনিট ফুটিয়ে নিয়ে, এই জলটি ফুটিয়ে নিয়ে, জলটি ছেঁকে এতে সামান্য লেবুর রস ও আধা চা চামচ মধু দিয়ে পান করুন। 


এটি দিনে ২থেকে ৩ বার খেলে বন্ধ নাকের সমস্ত উপসর্গ থেকে মুক্তি দেবে।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad