এই লিঙ্কের এক ক্লিকেই হ্যাক হবে মোবাইল - Breaking Bangla |breakingbangla.com | Only breaking | Breaking Bengali News Portal From Kolkata |

Breaking

Post Top Ad

Friday, 5 November 2021

এই লিঙ্কের এক ক্লিকেই হ্যাক হবে মোবাইল



 দিল্লী পুলিশের সাইবার ক্রাইম ইউনিট একটি বিশেষ অ্যাপ এবং একটি সফ্টওয়্যারের সাহায্যে হোয়াটসঅ্যাপ হ্যাককারী একটি গ্যাংকে ফাঁস করেছে।  এ ঘটনায় নাইজেরিয়ান এক নাগরিককে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।  ধৃত অভিযুক্তের নাম চিমেলুম ইমানুয়েল এনভিটালু ওরফে মরিস ডেগ্রি (৩৩)।


 সাহায্য চাওয়ার নামে প্রতারণা

 পুলিশ অভিযুক্তদের কাছ থেকে একটি ল্যাপটপ, ১৫টি মোবাইল ফোন ও অন্যান্য জিনিসপত্র উদ্ধার করেছে।  অভিযুক্তরা প্রতারণার অভিনব পদ্ধতি বের করেছিল।  হোয়াটসঅ্যাপ হ্যাক করার পর ভিকটিমদের মোবাইলের যোগাযোগের তালিকায় থাকা ব্যক্তিদের অ্যাকাউন্ট নম্বর পাঠিয়ে সাহায্যের নামে প্রতারণা করত সে।


 এ ছাড়া অনেক সময় সোশ্যাল মিডিয়ায় বন্ধুত্ব করে আবার কখনও ভেষজ বীজের নামে প্রতারণা করা হয়।  তার দলে অনেকেই জড়িত।  পুলিশের অভিযানে সে পালিয়ে যায়।  পুলিশ তাদের খোঁজ করছে।  অভিযুক্ত মরিস ২০১৮ সাল থেকে দেশে অবৈধভাবে বসবাস করছিলেন।  যে বাড়িতে তারা থাকতেন সেই ভারতীয়র বিরুদ্ধেও পুলিশ মামলা করেছে।



 যোগাযোগের তালিকা হ্যাক করতে ব্যবহৃত হয়

 কেপিএস মালহোত্রা, ডিসিপি, সাইবার ক্রাইম ইউনিট, ইন্টেলিজেন্স ফিউশন অ্যান্ড স্ট্র্যাটেজিক (আইএফএসও), বলেছেন যে সম্প্রতি দিল্লীতে বসবাসকারী এক ব্যক্তি তার হোয়াটসঅ্যাপ হ্যাক হওয়ার বিষয়ে সাইবার ক্রাইম ইউনিটের কাছে অভিযোগ করেছিলেন।  ভুক্তভোগী জানান, তার হোয়াটসঅ্যাপ হ্যাক করার পর কেউ তার সঙ্গে দেখাকারীদের কাছে মেসেজ পাঠিয়ে সাহায্যের নামে টাকা চাইতে শুরু করেছে।



 ভুক্তভোগী জানান, তার পরিচিতরা তাকে ফোন করে সমস্যার কথা বললে তারা বিষয়টি জানতে পারে।  হোয়াটসঅ্যাপ হ্যাক করার পরে, অভিযুক্তরা ভিকটিমদের যোগাযোগের তালিকা লঙ্ঘন করেছিল।  এর পরে, তিনি এসএমএস বা হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে সাহায্য চাইতে শুরু করেন।


 অভিযোগের পর পুলিশ অবিলম্বে একটি মামলা রুজু করে অভিযুক্তদের খোঁজ শুরু করে।  তদন্তে পুলিশ জানতে পারে দিল্লি ও ব্যাঙ্গালুরু থেকে প্রতারণার অপরাধ করা হচ্ছে।  এসিপি রমন লাম্বা এবং ইন্সপেক্টর ভানু প্রতাপের দল দিল্লীর মোহন গার্ডেন এলাকা থেকে অভিযুক্তদের একজনকে গ্রেপ্তার করেছে।  জিজ্ঞাসাবাদে অভিযুক্ত প্রতারণার কথা স্বীকার করেছে।


 এভাবে প্রতারিত হয়েছে

 পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে অভিযুক্ত জানিয়েছে যে সে যে কাউকে এসএমএস বা হোয়াটসঅ্যাপে লিঙ্ক পাঠাত।  কেউ ক্লিক করলেই তার মোবাইল হ্যাক হয়ে যেত।  অভিযুক্ত বিশেষ সফটওয়্যার দিয়ে তার মোবাইলের কন্টাক্ট লিস্ট কপি করে তাকে সাহায্যের বার্তা পাঠাত।  অভিযুক্ত নিজেও ভিকটিম হতেন এবং লোকজনের কাছে সাহায্য চেয়ে অ্যাকাউন্ট নম্বরও দিতেন।  অভিযুক্তকে ভিকটিম ভেবে লোকজন সাহায্য করত।


 দ্বিতীয় ধরনের ঘটনায় অভিযুক্তরা নিজেরাই ভেষজ বীজের চাহিদা তৈরি করে বীজ বিক্রেতা হয়ে ওঠে।  এতে বিনিয়োগের নামে মানুষ প্রতারিত হয়েছে।  এছাড়া সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে গার্লফ্রেন্ড বা বয়ফ্রেন্ড হয়েও প্রতারিত হয়েছেন মানুষ। অভিযুক্তদের দলে দশ থেকে বারো জন জড়িত।  বেশিরভাগ নাইজেরিয়ান তাদের ভিসার মেয়াদ শেষ হওয়ার পরেও ভারতে থাকে।  এখন এ ঘটনায় সবার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।


 অবৈধভাবে দেশে থাকেন

 মরিস গত কয়েক বছর ধরে দেশে বসবাস করছিলেন।  অভিযুক্ত ট্যুরিস্ট ভিসায় দেশে এসেছিলেন, কিন্তু ২০১৮ সালে ভিসার মেয়াদ শেষ হওয়ার পরেও অভিযুক্ত এখানে অবৈধভাবে বসবাস করছিলেন।  দলের সদস্যরা উত্তম নগর ও মোহন গার্ডেন এলাকায় বসবাস করত।


 

 এখন পুলিশ এমন বিদেশি নাগরিকদের তদন্ত শুরু করেছে, যাদের ভিসার মেয়াদ শেষ হওয়ার পরেও বাড়িওয়ালারা অভিযুক্তদের তাদের বাড়িতে রেখেছে।  তাদের বিরুদ্ধে পুলিশ ব্যবস্থা নিচ্ছে।  পুলিশ মরিসের বাড়িওয়ালার বিরুদ্ধে মামলাও করেছে।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad