ব্যায়াম করুন সার্ভিকাল থেকে দূরে থাকুন - Breaking Bangla |breakingbangla.com | Only breaking | Breaking Bengali News Portal From Kolkata |

Breaking

Post Top Ad

Thursday, 11 November 2021

ব্যায়াম করুন সার্ভিকাল থেকে দূরে থাকুন



ঘাড়ে ব্যথা, শক্ত হয়ে যাওয়া, কাঁধে ব্যথা, হাত-পায়ের অসাড়তা এবং হাত-পায়ে দুর্বলতা, শারীরিক ভারসাম্য নষ্ট হওয়া এগুলো সার্ভিকালের লক্ষণ। এই সমস্যাগুলো  সাধারণত ভুল অবস্থানে বসা এবং ঘুমানোর কারণে হয়।  ক্রমাগত ভুল অবস্থানের কারণে মেরুদণ্ডের ঘাড়ের অংশ ফুলে যাওয়া থেকে শুরু হওয়া এই সমস্যাটি বিশেষ করে যারা কম্পিউটারে কাজ করেন তাদের বেশি হয়।  এখন কম্পিউটারের চেয়ে বেশি মোবাইল ব্যবহারের কারণে এই সমস্যা হচ্ছে।  


ঋতু পরিবর্তনের সময়ে সব ধরনের ব্যথা হতে শুরু করলেও,সার্ভিকালের সমস্যা অনেকটাই বেড়ে যায়। কোভিডের কারণে বাড়ি থেকে কাজ করার সময়,মানুষ এই সমস্যায় সব চেয়ে বেশি হয়রানির শিকার হয়েছে।  বাড়িতে বিছানায় বসে ল্যাপটপ বা মোবাইলে কাজ করা আমাদের বসার ভঙ্গি খারাপ করে দিয়েছে।  অনলাইন ক্লাসের সুবাদে ঘণ্টার পর ঘণ্টা স্ক্রিনের সামনে থাকার পরও যে শিশুরা মোবাইলে গেম খেলে তাদেরও এই সমস্যায় পড়তে হচ্ছে।  মনে রাখবেন, যাদের বেশিক্ষণ বসে কাজ করতে হয়, তাদের ঋতু  পরিবর্তনের সময় নিজের দিকে মনোযোগ দেওয়া খুব জরুরি।


 খেলা সমস্যার সমাধান করবে:


 শারীরিক ব্যায়াম ও আউটডোর গেমের অভাবে শিশুরাও এই সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছে।  এ বিষয়ে বিশেষজ্ঞরা বলেছেন, এই সব সমস্যা এড়াতে প্রথমেই সুষম খাদ্য গ্রহণ করুন, যাতে কার্বোহাইড্রেট, প্রোটিন ও মিনারেল সঠিক অনুপাতে থাকে।


 বসার ভঙ্গির যত্ন নিন:


 কম্পিউটারে কাজ করার সময় বা মোবাইল ব্যবহার করার সময়, আপনার বসার ভঙ্গি ঠিক রাখুন।  বসার সময় মেরুদণ্ড সোজা রাখতে হবে।  ক্রমাগত ঘাড় বাঁকিয়ে ঘণ্টার পর ঘণ্টা কাজ করলে মেরুদণ্ডের ওপরের অংশে চাপ পড়ে এবং এর ফলে সার্ভিকাল হয়।  প্রতি আধ ঘন্টা পর পর আপনার আসন থেকে উঠে একটু হাঁটাহাঁটি করুন।


 পাতলা বালিশ ব্যবহার করুন:


 পুরনো কথা আছে, 'কাজের পরিবর্তনই বিশ্রাম'। এই প্রবাদটি বাস্তবায়িত হলে শরীরের ওপর কাজের চাপ কমবে।  রাতে ঘুমানোর সময় মোটা বালিশ ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন।  হালকা বালিশ ব্যবহার করলে ঘাড়ের নিচে পূর্ণ সমর্থন প্রদান করা হয়।  এ জন্য বালিশের পরিবর্তে চাদর বা তোয়ালে ব্যবহার করতে পারেন।


 অনেক সময় ক্যালসিয়াম ও ভিটামিন-ডি-এর অভাবও এ ধরনের সমস্যার কারণ হয়ে দাঁড়ায়।  অতএব, ৪০ বছর বয়সের পরে, নিয়মিত পরীক্ষা করাতে থাকুন। প্রতিদিন আধা ঘণ্টা রোদে বসুন। সূর্যের আলো শরীরের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ।  সেজন্য সবারই কিছু সময় রোদে থাকা উচিত।


 নিয়মিত ব্যায়াম:


 চিকিৎসকের পরামর্শে ফিজিওথেরাপি করা উপকারী।  যদি সমস্যা প্রাথমিক পর্যায়ে থাকে, তাহলে চিকিৎসক নিজেই ব্যায়ামের পরামর্শ দেন এবং কোন ব্যায়াম, কীভাবে এবং কতক্ষণ তাও বলে দেন।


 ঘরোয়া প্রতিকার:


 গরম দুধে সামান্য হলুদ মিশিয়ে পান করুন।  হলুদে অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট এবং প্রদাহজনক বৈশিষ্ট্য রয়েছে।

 আদা ব্যথা উপশমকারী হিসেবেও কাজ করে।  চা, দুধ বা মসুর ডালেও আদা ব্যবহার করতে পারেন।


 রসুন একটি খুব ভালো অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট।  প্রতিদিন সকালে খালি পেটে রসুনের দুই কোয়া খেলে খুব উপকার পাওয়া যায়।


 লবণ-জল ব্যথা উপশমকারী হিসেবে কাজ করে।  শরীরের ব্যথাযুক্ত অংশে গরম জলে  লবণ দিয়ে সেঁক করুন।


 ডাক্তাররা কি বলেন:


 অল ইন্ডিয়া ইনস্টিটিউট অফ মেডিক্যাল সায়েন্সের (AIIMS) কে.এম.নাধির বলেছেন যে, ঘাড়ের হাড় সবচেয়ে বেশি ব্যবহৃত হয়।  মেরুদণ্ডের ঘাড়ের অংশ একটু দুর্বল হয়,সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে।  তাই কিছু সতর্কতা প্রয়োজন।  নিয়মিত ব্যায়াম না করার কারণে পেশী দুর্বল হয়ে পড়ে।  খাদ্যাভ্যাসের যত্ন নেওয়াও জরুরি।  ঘাড়ের ব্যথা উপেক্ষা করবেন না।  একজন অর্থোপেডিক বিশেষজ্ঞের সাথে পরামর্শ করুন।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad