দেখুন এক অভাগা মায়ের কষ্ট, বিরল রোগে আক্রান্ত শিশুকে ১২ বছর স্পর্শ না করেই কাটিয়ে দিলেন - Breaking Bangla |breakingbangla.com | Only breaking | Breaking Bengali News Portal From Kolkata |

Breaking

Post Top Ad

Tuesday, 26 October 2021

দেখুন এক অভাগা মায়ের কষ্ট, বিরল রোগে আক্রান্ত শিশুকে ১২ বছর স্পর্শ না করেই কাটিয়ে দিলেন


 সন্তানকে জীবিত দেখতে, একজন মা ১২ বছর পর্যন্ত তার সন্তানকে স্পর্শ করেননি, তার ছেলে একটি বিরল রোগের শিকার ছিলেন, ডেভিড মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাসে বসবাস করতেন।  তার এমন একটি রোগ ছিল যেখানে তাকে স্পর্শ করলে তার মৃত্যু হতে পারে।  এমন পরিস্থিতিতে, তার সন্তানের দীর্ঘজীবনের জন্য, তার মা তাকে স্পর্শ না করেই পুরো ১২ বছর কাটিয়ে দেয়।


 

প্রকৃতপক্ষে, ডেভিডের জন্মের পর থেকেই একটি প্রাণঘাতী জেনেটিক রোগ ছিল।  এমন অবস্থায় কেউ তাকে স্পর্শ করলে সে মারা যেতে পারত।  এই কারণে, যে মা তাকে জন্ম দিয়েছেন তিনিও তাকে স্পর্শ করতে পারেননি।  চিকিৎসকদের মতে, এই রোগে আক্রান্ত রোগীকে স্পর্শ করলে তার শরীরে সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়তে শুরু করে, যা তাকে মৃত্যুর দিকে নিয়ে যায়।



চিকিৎসা বিজ্ঞানীদের মতে, এই রোগ পৃথিবীতে মাত্র কিছু মানুষের মধ্যে দেখা যায়।  ডেভিডের আগে, তার ভাই এই রোগে আক্রান্ত হয়েছিল যে ৪ মাসে মারা গিয়েছিল।


 এজন্যই নাসার বিজ্ঞানীরা ডেভিডের জন্য একটি বিশেষ ধরনের বর্ম তৈরি করেছিলেন, যাকে ডক্টর বুদ্বুদ বলা হয়।  ডেভিডের পুরো জীবন কাটল এই বুদবুদটার ভেতর।  তিনি ১৯৭১ সালের সেপ্টেম্বরে জন্মগ্রহণ করেন। এই ধরনের রোগীদের ঘর থেকে বের হওয়ার সময় ভিন্ন ধরনের পোশাক পরতে হয়, যা দেখতে একজন মহাকাশচারীর স্যুটের মতো।


 যাইহোক, ডেভিডের এই রোগকে কাটিয়ে উঠতে বোস্টনের বিজ্ঞানীরা তার পরিবারের সদস্যদের তার অস্থি মজ্জা প্রতিস্থাপনের পরামর্শ দিয়েছিলেন।  এ জন্য তার ছোট বোনকে বেছে নেওয়া হয়। ২২ শে ফেব্রুয়ারী, ১৯৮৪ সালে অস্থি মজ্জা প্রতিস্থাপন করার পরেই সে রক্ত ​​বমি করতে শুরু করেছিল। তার রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা দ্রুত হ্রাস পাওয়ার কারণে সে মারা যায়। তারপরে ডাক্তাররা প্রথমবারের মতো তার মাকে গ্লাভস ছাড়াই তাকে স্পর্শ করতে দেয়।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad