ব্রেন স্ট্রোকের হলে শীঘ্রই হাসপাতাল পৌঁছন। জেনে নিন কি করবেন বিশেষজ্ঞের কাছ থেকে - Breaking Bangla |breakingbangla.com | Only breaking | Breaking Bengali News Portal From Kolkata |

Breaking

Post Top Ad

Friday, 1 October 2021

ব্রেন স্ট্রোকের হলে শীঘ্রই হাসপাতাল পৌঁছন। জেনে নিন কি করবেন বিশেষজ্ঞের কাছ থেকে




নিউস ডেস্ক :- মস্তিষ্কের কোনও একটি স্নায়ু হঠাৎ ব্লক হয়ে গেলে বা ফেটে গেলে তাকে ব্রেইন স্ট্রোক বলে। ব্রেইন স্ট্রোককে ব্রেইন অ্যাটাকও বলা হয়।


 যার ফলে মস্তিষ্কে রক্ত ​​সরবরাহ বন্ধ হয়ে যায়, যা সরাসরি মস্তিষ্ককে প্রভাবিত করে।  এটি খুবই বিপজ্জনক পরিস্থিতি।


 যদিও ব্রেইন স্ট্রোক যে কোনও সময়, যে কোনও জায়গায় হতে পারে, কিন্তু এর বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই দেখা যায় ভোরে। 


আজকের যুগে, এটা এমন নয় যে ব্রেইন স্ট্রোক শুধুমাত্র বয়স্কদেরই এর শিকার করছে, প্রতি বছর লক্ষ লক্ষ তরুণ, প্রাপ্তবয়স্ক এই রোগের কারণে তাদের জীবন হারাচ্ছে। 

শুধুমাত্র আমেরিকায় প্রতি বছর প্রায়  হাজার যুবক, যাদের বয়স ৪০ এর কম, তারা এই মারাত্মক রোগের শিকার হচ্ছে।



 দৈনিক জাগরণে প্রকাশিত একটি প্রতিবেদনে, গাজিয়াবাদের ম্যাক্স হাসপাতালের নিউরো সার্জারির পরিচালক ডা.মনীশ বৈশ ব্রেন স্ট্রোক সম্পর্কে কিছু গুরুত্বপূর্ণ কথা বলেছেন।  ডা. বৈশ বলেছেন যে, ব্রেন স্ট্রোক বিশ্বব্যাপী মৃত্যুর দ্বিতীয় প্রধান কারণ।  এটি হলে,ব্যক্তিটি কেবল প্রতিবন্ধীও হতে পারে তা নয়, মারাও যেতে পারে।


তিনি আরো জানান যে, আমাদের মস্তিষ্কের লক্ষ লক্ষ টিউবুল হৃদয় থেকে মস্তিষ্কে রক্ত ​​বহন করার কাজ করে।  রক্ত সরবরাহের ব্যাঘাতের কারণে, মস্তিষ্কের দিকে রক্ত ​​সঞ্চালন হয় না এবং অক্সিজেনের সরবরাহ বন্ধ হয়ে যায়, যার কারণে এই নালীগুলি নষ্ট হতে শুরু করে।  এছাড়া মস্তিষ্কে রক্ত ​​জমাট বাঁধা বা রক্তপাতের কারণেও ব্রেইন স্ট্রোক হতে পারে।




 মস্তিষ্কে রক্তক্ষরণ:-


 রক্তের নালী ফেটে যাওয়ার কারণে মস্তিষ্কের রক্তক্ষরণ হয়।  এই কারণে মস্তিষ্কে রক্তপাত হয়।  মস্তিষ্কের রক্তক্ষরণের প্রধান কারণ উচ্চ রক্তচাপ।  কখনও কখনও মানুষ হঠাৎ করে স্ট্রোকের শিকারও হয়ে যায়।  এটি ঘটে যখন মস্তিষ্কে খুব অল্প সময়ের জন্য রক্তের সংক্রমণ প্রভাব থাকে।  এটি মাত্র কয়েক মিনিট স্থায়ী হয়।  মিনি স্ট্রোক আক্রান্তদের কোন স্থায়ী ক্ষতি হয় না, কিন্তু এটি ভবিষ্যতে স্ট্রোকের ঝুঁকি বাড়ায়।  মস্তিষ্কের রক্তক্ষরণ মস্তিষ্কের স্ট্রোকের একটি গুরুতর রূপ।




 ব্রেইন স্ট্রোক হলে কি করা উচিৎ :-


 ডা. বৈশের মতে, ব্রেন স্ট্রোকের ক্ষেত্রে রোগীকে রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণকারী ওষুধ দেবেন না এবং তাৎক্ষণিক চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে যান।  অবিলম্বে চিকিৎসা করা প্রয়োজন। কারণ স্ট্রোকের সময় নিউরনগুলি খুব দ্রুত ধ্বংস হয়ে যায় এবং তাদের গঠনের হার খুব ধীর এবং অবস্থা গুরুতর হওয়ার সম্ভাবনা বৃদ্ধি পায়।




 চিকিৎসা:-


 মস্তিষ্কের রক্তক্ষরণের চিকিৎসা নির্ভর করে মস্তিষ্কের কোন অংশে রক্তপাত হয়েছে এবং এর কারণ কী? কোনো কোনো ক্ষেত্রে চিকিৎসকরা রোগীকে ওষুধ দিয়ে সুস্থ করেন, কিন্তু অনেক সময় অতিরিক্ত রক্তক্ষরণের কারণে অস্ত্রোপচারের প্রয়োজন হয়।




 কী করবেন এবং কী করবেন না:-


 ১.মানসিক প্রশান্তির জন্য ধ্যান করা উচিৎ।


 ২.ধূমপান ও অ্যালকোহল করা উচিৎ নয়।


 ৩.নিয়মিত ব্যায়াম এবং যোগব্যায়াম করা খুবই ভালো।


 ৪.ওজন খুব বেশি বাড়তে দেওয়া যাবেনা।


 ৫.হার্ট এবং সুগার রোগের অতিরিক্ত যত্ন নিতে হবে।


 ৬.অতিরিক্ত লবন গ্রহণ করা যাবেনা।


ব্রেন স্টোক এর লক্ষণ :-


 হঠাৎ তীব্র মাথাব্যথা।


 খিঁচুনি হওয়া।


হাত বা পায়ে দুর্বলতা অনুভব করা।


 বমি বমি ভাব।


দেখার ক্ষমতা কম।


 হাত -পায়ে অসাড়তা।


 কথা বলা এবং খেতে অসুবিধাবোধ।


 শরীরের ভারসাম্য হারানো।




ব্রেন স্টোক হওয়াও কারণ কি:-


 মাথায় কোন আঘাত পাওয়া।


উচ্চ রক্তচাপ।


মস্তিষ্কের রক্তনালীর প্রদাহ।


রক্ত সম্পর্কিত সমস্যা যেমন হিমোফিলিয়া বা রক্তশূন্যতা।


 লিভার সংক্রান্ত সমস্যা।


ব্রেন টিউমার।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad