জেনে নিন বিপ্লবী নানা সাহেব পেশওয়ার মৃত্যুর পিছনে রহস্য কি ছিল - Breaking Bangla |breakingbangla.com | Only breaking | Breaking Bengali News Portal From Kolkata |

Breaking

Post Top Ad

Friday, 1 October 2021

জেনে নিন বিপ্লবী নানা সাহেব পেশওয়ার মৃত্যুর পিছনে রহস্য কি ছিল





নিউজ ডেস্ক: দেশের স্বাধীনতার জন্য অনেক বিপ্লবী আত্মত্যাগ করেছিলেন। প্রতিটি বিপ্লবী তার নিজস্ব উপায়ে দেশকে স্বাধীন করতে চেয়েছিলেন। যার মধ্যে একজন ছিলেন বিপ্লবী নানা সাহেব পেশওয়া দ্বিতীয়। তিনি ১৮৫৭ সালের 'প্রথম ভারতীয় স্বাধীনতা সংগ্রামের' প্রধান স্থপতি ছিলেন। নানা সাহেব ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে 'স্বাধীনতা সংগ্রামে' নেতৃত্ব দেন। এই বিপ্লবীর মৃত্যুতে আজও ঐতিহাসিকরা কোন সিদ্ধান্তে পৌঁছাতে পারেনি। 


কে ছিলেন ছোট সাহেব পেশোয়া?


১৮২৪ সালে ভেনুগ্রামে মাধব নারায়ণ রাও -এর জন্ম, ছোট সাহেবকে ১৮২৭ সালে পেশওয়া বাজিরাও বল্লাল ভট্ট দ্বিতীয় দত্তক নিয়েছিলেন। পেশওয়া বাজিরাও -এর ছত্রছায়ায় , ছোট সাহেব শিখেছিলেন ঘোড়ায় চড়া, অস্ত্র পরিচালনা এবং দক্ষ রাজনীতির কৌশল। নানা সাহেবকে ইতিহাসে বালাজি বাজিরাও বলে সম্বোধন করা হয়েছে। 


পেনশন নিয়ে ব্রিটিশদের সঙ্গে বিরোধ


এদিকে পেশওয়া বাজিরাওকে মারাঠা সাম্রাজ্য ত্যাগ করে কানপুরের কাছে বিথুরে আসতে হয়েছিল। এই সময়ের মধ্যে ব্রিটিশরা ভারতের একটি বড় অংশ দখল করে নিয়েছিল। এদিকে পেশোয়া বাজিরাও মারা যান ২৮শে জানুয়ারি, ১৮৫১ সালে। মৃত্যুর সময় পেশোয়া ব্রিটিশ সরকারের কাছ থেকে ৮০ হাজার ডলার পেনশন পেতেন, কিন্তু পরে তা বন্ধ করে দেওয়া হয়। কথিত আছে যে লর্ড ডালহৌসি, দত্তক পুত্র হওয়ার কারণে নানা সাহেবকে তার বাবার পেনশন দিতে অস্বীকার করেছিলেন। এদিকে, ব্রিটিশরা 'মারাঠা সাম্রাজ্যের' উপর তাদের কর্তৃত্ব জমা করছিল। নানা সাহেবকে তার জীবনযাত্রার জন্য রাজকীয় সুযোগ-সুবিধা দেওয়া হচ্ছিল না। এমন পরিস্থিতিতে, ১৮৫৩ সালে, নান সাহেব তার সচিব আজিমুল্লাহকে লন্ডনে পাঠান পেনশন পুনরুদ্ধারের বিষয়ে কথা বলার জন্য। আজিমুল্লাহ খান হিন্দি, ফারসি, উর্দু, ফরাসি, জার্মান এবং সংস্কৃত ভাষায় পারদর্শী ছিলেন। তিনি ব্রিটিশদের নিষ্ঠুর নীতির শিকার ছিলেন, তাই নানা সাহেব তাকে তার সচিব বানিয়েছিলেন। আজিমুল্লাহ খান যখন ব্রিটেনে পৌঁছান, তিনি ব্রিটিশ কর্মকর্তাদের বোঝানোর অনেক চেষ্টা করেন, কিন্তু তার সব যুক্তি প্রত্যাখ্যান করা হয়। ব্রিটিশ অফিসারদের এই মনোভাব দেখে নানা সাহেব খুবই বিরক্ত হলেন। এমন পরিস্থিতিতে তিনি ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে বিদ্রোহকে নিজের অস্ত্র হিসেবে গড়ে তোলেন। এদিকে, মঙ্গল পান্ডের নেতৃত্বে 'মিরাট ক্যান্টনমেন্ট' -এর সৈন্যরা ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে বিদ্রোহের সূচনা করে দিয়েছিল। এই খবর যখন নানা সাহেবের কাছে পৌঁছল, তিনি তাতিয়া টোপিকে নিয়ে কানপুরে ব্রিটিশ সরকারের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ শুরু করলেন। ছোট সাহেব নেতৃত্ব গ্রহণ করার সাথে সাথেই ব্রিটিশদের কানপুর ছেড়ে পালিয়ে যেতে হয়েছিল। ১৮৫৭ সালে, ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে বিদ্রোহের আগুন সারা দেশে ছড়িয়ে পড়েছিল। এই সময়ে, নানা সাহেব পেশওয়া ভারতীয় যোদ্ধাদের নেতৃত্ব দিচ্ছিলেন। স্বাধীনতা সংগ্রামের শুরুতে, ভারতীয় বিপ্লবীরা জয়লাভ করেছিল, কিন্তু কিছু সময় পরে ব্রিটিশরা জয়লাভ করতে শুরু করে। এমন পরিস্থিতিতে এক সময় নানা সাহেব ব্রিটিশ কর্মকর্তাদের সঙ্গে চুক্তি করেছিলেন। এই সময়, কানপুরের কমান্ডিং অফিসার জেনারেল হুইলার তার সহযোদ্ধাদের এবং তাদের পরিবারের সঙ্গে নদীর ধারে কানপুর আসছিলেন, তখন নানা সাহেবের সৈন্যরা তাকে আক্রমণ করে এবং সৈন্যসহ নারী ও শিশুদের হত্যা করে। 


'সতী চৌরা ঘাট' হত্যাকাণ্ডকে কেন্দ্র করে শত্রুতা


কানপুরের সতী চৌরা ঘাটে (নানারাও ঘাট) এই গণহত্যার পর, নানা সাহেব এবং ব্রিটিশদের শত্রুতা গুরুতর অবস্থান নেয়। এই ঘটনার পর ব্রিটিশরা পুরোপুরি নানা সাহেবের বিরুদ্ধে চলে যায় এবং নানা সাহেবের দুর্গ বিথুরে আক্রমণ করে। এই আক্রমণের সময় নানা সাহেব কোনভাবে তার জীবন বাঁচাতে সক্ষম হন। কিন্তু বিথুর কেল্লা থেকে পালানোর পর তার কী হয়েছিল তা আজ পর্যন্ত অজ্ঞাত রয়ে গেছে। 


নানা সাহেবের গুপ্তধনের রহস্য কি ছিল?


রহস্য শুধু নানা সাহেবের অন্তর্ধানের নয়, তার অমূল্য সম্পদেরও। যখন বৃটিশরা নানা সাহেবের প্রাসাদ আক্রমণ করে, তখন তারা নানা সাহেবকে স্পর্শ করেনি, কিন্তু ধনী ব্রিটিশরা তার প্রাসাদে ময়লা ফেলতে শুরু করে। এই সময়ে, রয়েল ইঞ্জিনিয়ার এবং ব্রিটিশ সেনাবাহিনীর অর্ধেক লোক গোপন গুপ্তধনের সন্ধানে নিযুক্ত ছিল। গুপ্তধন খুঁজতে ব্রিটিশরা কিছু ভারতীয় গুপ্তচরদেরও সাহায্য নেয়। যার কারণে তিনি গুপ্তধন খুঁজে পেতে প্রায় সফল হয়েছিলেন। এই সময় ব্রিটিশরা প্রাসাদে ৭ টি গভীর কূপ খুঁজে পায়। যা খুঁজতে গিয়ে তারা সোনার একটি প্লেট পেয়েছিলেন। এটি নিশ্চিত করে যে, নানা সাহেবের ধন এই কূপের কোথাও লুকিয়ে আছে। এদিকে, সমস্ত জল সরানোর পর যখন কূপটি তল্লাশি করা হয়েছিল, তখন অনেক বড় বাক্স পাওয়া গিয়েছিল, যার মধ্যে অনেকগুলি সোনার প্লেট, রূপার মুদ্রা এবং অন্যান্য মূল্যবান জিনিসপত্র রাখা হয়েছিল। একটি বিশাল কোষাগার ইতিমধ্যেই ব্রিটিশদের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছিল। তা সত্ত্বেও, ছোট সাহেব ধন-সম্পদের একটি বড় অংশ তার সঙ্গে নিয়ে যেতে সক্ষম হন। 


নানা সাহেবের মৃত্যুর কোন প্রমাণ পাওয়া যায়নি


ঐতিহাসিকদের মতে, নেপালের 'দেবখড়ি' গ্রামে বসবাস করার সময় নানা সাহেব জ্বরের কবলে পড়েছিলেন। এই রোগের কারণে, তিনি ১৮৫৭ সালের ৬ অক্টোবর ৩৪ বছর বয়সে মারা যান। অন্যদিকে, কিছু ঐতিহাসিক বিশ্বাস করেন যে, ছোট সাহেব তার শেষ দিনগুলি নেপালে নয়, গুজরাটের 'সিহোরে' নাম পরিবর্তন করে বাস করছিলেন। এই সময় তিনি তার নাম পরিবর্তন করে স্বামী দয়ানন্দ যোগেন্দ্র রাখেন এবং অসুস্থতার কারণে সেই জায়গাতেই মারা যান।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad