সতর্কতা ! একটি জিওম্যাগনেটিক ঝড় আঘাত হানতে পারে পৃথিবীতে, অনেক দেশে রয়েছে ব্ল্যাকআউটের আশঙ্কাও - Breaking Bangla |breakingbangla.com | Only breaking | Breaking Bengali News Portal From Kolkata |

Breaking

Post Top Ad

Monday, 27 September 2021

সতর্কতা ! একটি জিওম্যাগনেটিক ঝড় আঘাত হানতে পারে পৃথিবীতে, অনেক দেশে রয়েছে ব্ল্যাকআউটের আশঙ্কাও



 

নিউজ ডেস্ক :এই সপ্তাহে পৃথিবীতে আঘাত হানতে পারে সূর্য থেকে বের হওয়া শক্তিশালী ঝড়ের ঢেউ। এই কারণে, জিপিএস সিস্টেম, সেলফোন নেটওয়ার্ক, স্যাটেলাইট টিভি এবং পাওয়ার গ্রিড বন্ধ করা যেতে পারে।  মার্কিন সরকারের মহাকাশ আবহাওয়া পর্যবেক্ষক পৃথিবীতে একটি ভূ -চৌম্বকীয় ঝড় আঘাত হানার বিষয়ে সতর্ক করেছে।  অর্থাৎ যে কোনও সময়, এটি পৃথিবীতে কয়েক মিনিটের জন্য সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে।



 কিভাবে এবং কেন ভূ -চৌম্বকীয় ঝড় হয়?


 মার্কিন মহাকাশ সংস্থা নাসা জানিয়েছে, সূর্যের উপরিভাগে বড় আকারের বিস্ফোরণ হয়, যার সময় কিছু অংশ অত্যন্ত উজ্জ্বল আলো দিয়ে প্রচুর শক্তি নিঃসরণ করে, যাকে বলা হয় সূর্যের শিখা।  সূর্যের পৃষ্ঠে এই বিস্ফোরণের কারণে, এর পৃষ্ঠ থেকে প্রচুর পরিমাণে চৌম্বক শক্তি নির্গত হয়, যার কারণে সূর্যের বাইরের পৃষ্ঠের কিছু অংশ উন্মুক্ত হয়।  এই অংশটিকে করোনাল হোলস বলা হয়।  এই গর্তগুলি থেকে শক্তি বের হয়, যা দেখতে আগুনের মতো।  বিজ্ঞানীদের মতে, যদি এই শক্তি একটানা কয়েক দিন অব্যাহত থাকে, তাহলে খুব ছোট পারমাণবিক কণাও বের হতে শুরু করে যা মহাবিশ্বে ছড়িয়ে পড়ে, যাকে বলা হয় ভূ -চৌম্বকীয় বা জিওম্যাগনেটিক ঝড়।



 যখন এই ঝড় পৃথিবীতে আঘাত করবে তখন কি হবে?


 সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল সূর্যের পৃষ্ঠে কোন দিকে বিস্ফোরণ ঘটেছিল।  এর কারণ হল যে দিকে বিস্ফোরণ ঘটবে, একই দিক থেকে পারমাণবিক কণার শক্তি মহাকাশে ভ্রমণ করবে।  এমন অবস্থায় যদি বিস্ফোরণের দিক পৃথিবীর দিকে থাকে, তাহলে এই শক্তিও এটিকে প্রভাবিত করবে।  বিজ্ঞানীদের মতে, পৃথিবীর চৌম্বক ক্ষেত্র সূর্যের বিকিরণ থেকে রক্ষা করে।  পৃথিবীর গর্ভ থেকে নির্গত চুম্বকীয় শক্তি, যা বায়ুমণ্ডলের চারপাশে একটি ঢাল গঠন করে, এটি এই কণার দিক পরিবর্তন করে।  কিন্তু সৌর ঝড়ের সময়, তারা এই ঢালটি ভেদ করে, যা পৃথিবীতে একটি বড় প্রভাব ফেলে।  সৌর ঝড়কে জি ১ থেকে জি ৫ পর্যন্ত ৫ টি বিভাগে বিভক্ত করা হয়েছে, যার মধ্যে ১ টি সবচেয়ে দুর্বল এবং ৫ টি সম্ভবত ক্ষতির কারণ।



 নাসার বিজ্ঞানীরা বিশ্বাস করেন যে সূর্যের উপর ঝড় উঠার প্রভাব স্যাটেলাইট ভিত্তিক প্রযুক্তির উপর হতে পারে।  সৌর বাতাসের কারণে পৃথিবীর বাইরের বায়ুমণ্ডল উত্তপ্ত হতে পারে, যা উপগ্রহগুলিকে প্রভাবিত করে।  এটি জিপিএস নেভিগেশন, মোবাইল ফোন সিগন্যাল এবং স্যাটেলাইট টিভিতে হস্তক্ষেপের কারণ হতে পারে।  একই সময়ে, বিদ্যুতের লাইনে কারেন্ট বেশি হতে পারে, যার কারণে ট্রান্সফরমারটিও ফেটে যেতে পারে।  এমনও হতে পারে যে কিছু দেশে বিদ্যুৎ সরবরাহ বিঘ্নিত হতে পারে।  বৈদ্যুতিক গ্রিড এবং ইন্টারনেটের প্রভাবের মাধ্যমে তাদের তীব্রতা বোঝা যায়।



 ১৯৮৯ সালে ৯ ঘন্টা ব্ল্যাকআউট হয়েছিল


 পৃথিবীতে সৌর ঝড়ের সবচেয়ে ভয়াবহ প্রভাব দেখা গিয়েছিল ১৯৮৯ সালের মার্চ মাসে।  সৌর ঝড়ের কারণে কানাডার হাইড্রো-ক্যুবেক বিদ্যুৎ সঞ্চালন ব্যবস্থা ৯ ঘন্টা বন্ধ ছিল।  এর পরে, ১৯৯১ সালে, একটি সৌর ঝড়ের কারণে, আমেরিকার প্রায় অর্ধেক জায়গায় বিদ্যুৎ ব্যর্থতা ছিল।  তবে এটি সবচেয়ে বড় ঝড় ছিল না।  বলা হয়ে থাকে যে, সবচেয়ে ভয়াবহ সৌর ঝড়টি ১-২ সেপ্টেম্বর ১৯৮৯ এ ঘটেছিল।  এটিকে ক্যারিংটন ইভেন্ট বলা হত।  তখন এত বিদ্যুৎ, স্যাটেলাইট, স্মার্টফোন ইত্যাদি ছিল না।  তাই ক্ষতিটা খুব বেশি মনে হয়নি।  কিন্তু সেই সময়ে যে তীব্রতায় ঝড় এসেছিল, যদি তা বর্তমানের মধ্যেই আসত, তাহলে বড় ধরনের ধ্বংসযজ্ঞ হতো।  অনেক দেশে পাওয়ার গ্রিড বন্ধ হয়ে যাবে।  স্যাটেলাইট কাজ করে না।  জিপিএস সিস্টেম ব্যাহত হতো।  মোবাইল নেটওয়ার্ক অদৃশ্য হয়ে যায়।  রেডিও যোগাযোগের অবনতি হত।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad