প্রাচীন ভারতের ইতিহাস জানার জন্য এইসব জায়গা পরিদর্শন করুন - Breaking Bangla |breakingbangla.com | Only breaking | Breaking Bengali News Portal From Kolkata |

Breaking

Post Top Ad

Saturday, 28 August 2021

প্রাচীন ভারতের ইতিহাস জানার জন্য এইসব জায়গা পরিদর্শন করুন




 নিউজ ডেস্ক: ভারতের ইতিহাস তিনটি ভাগে বিভক্ত। এর প্রথম অংশকে বলা হয় প্রাচীন ভারত। প্রাচীন ভারতের বীরত্ব ইতিহাসের পাতায় স্বর্ণাক্ষরে লেখা আছে।   


প্রাচীন ভারতের কথা শুধু বইয়েই আছে।যদি আপনি জীবিত আকারে প্রাচীন ইতিহাসের সঙ্গে পরিচিত হতে চান, তাহলে অবশ্যই দেশের এই জায়গাগুলো ঘুরে আসুন।


১.সুদর্শন লেক


এই হ্রদটি গুজরাট রাজ্যের গিরনারে অবস্থিত। এই হ্রদটি চন্দ্রগুপ্ত মৌর্যের রাজত্বকালে গঠিত হয়েছিল। ঐতিহাসিকদের মতে, মৌর্য সাম্রাজ্য উত্তর-পশ্চিমে বিস্তৃত ছিল। সেই সময়ে মৌর্য সাম্রাজ্যের প্রতিষ্ঠাতা চন্দ্রগুপ্তের নির্দেশে তাঁর গভর্নর পুশ্যগুপ্ত সুদর্শন লেক নির্মাণ করেছিলেন।  যাইহোক, সম্রাট অশোকের রাজত্বকালে হ্রদটি পুনর্গঠিত হয়েছিল।  এই হ্রদটি মানুষের কল্যাণের জন্য তৈরি করা হয়েছিল।  'গিরনার শিলালিপিতে' এর উল্লেখ আছে।  প্রাচীন ইতিহাস দেখতে আপনাকে অবশ্যই গিরনার যেতে হবে।


 ২.শ্রাবণবেলাগোলা


শ্রাবণবেলাগোলা কর্ণাটক রাজ্যের হাসান জেলায় অবস্থিত।  এই স্থানটি খুবই পবিত্র।  জৈন ধর্মের অনুসারীদের কাছে শ্রাবণবেলাগোলা মক্কা-মদিনার সমতুল্য।  চন্দ্রগুপ্ত মৌর্য এই স্থানে শেষ নি নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। জৈন শাস্ত্রে এর উল্লেখ আছে।  চন্দ্রগুপ্ত মৌর্যের সাহসিকতা তামিল গ্রন্থ মুরানানুর এবং অহননূরেও আলোচনা করা হয়েছে।  বিপুল সংখ্যক পর্যটক শ্রাবণবেলাগোলা পরিদর্শন করেন।  বিশেষ করে যারা জৈন ধর্মে বিশ্বাস করেন তারা বেশি যান।  যখনই সুযোগ পাবেন, অবশ্যই একবার শ্রাবণবেলাগোলা পরিদর্শন করুন।


৩.কলিঙ্গ, ধৌলি


 ওড়িশার রাজধানী ভুবনেশ্বর থেকে মাত্র ৮ কিলোমিটার দূরে ধৌলি অবস্থিত।  ঐতিহাসিকদের মতে, কলিঙ্গের যুদ্ধ সম্ভবত দয়া নদীর তীরে সংঘটিত হয়েছিল।  এই যুদ্ধে সম্রাট অশোক বিজয়ী হয়েছিলেন কিন্তু তার হৃদয় পরিবর্তনের কারণে মৌর্য শাসন পরবর্তীতে পতিত হয়। এই যুদ্ধে প্রায় ১ লক্ষ মানুষ মারা যায়।  কলিঙ্গ যুদ্ধ ছিল সম্রাট অশোকের জীবনের শেষ যুদ্ধ।  এই যুদ্ধের পর, সম্রাট অশোক অস্ত্র না নেওয়ার অঙ্গীকার করেছিলেন।  বৌদ্ধধর্মও গ্রহণ করেছিলেন।  প্রতি বছর ধৌলি শান্তি স্তূপে কলিঙ্গ উৎসব পালিত হয়। এই উৎসবের উদ্দেশ্য শান্তি প্রতিষ্ঠা করা। প্রাচীন ইতিহাসের সঙ্গে পরিচিত হতে, আপনাকে অবশ্যই একবার কলিঙ্গ পরিদর্শন করতে হবে।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad