দাঁতনে দল ছাড়লেন দুই বিজেপি নেতা - Breaking Bangla |breakingbangla.com | Only breaking | Breaking Bengali News Portal From Kolkata |

Breaking

Post Top Ad

Tuesday, 25 May 2021

দাঁতনে দল ছাড়লেন দুই বিজেপি নেতা

  


সারা দেশের পাশাপাশি পশ্চিমবঙ্গ জুড়ে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ক্রমশ বাড়ছে । ঠিক এই সময় করোনাকালে নারদ কান্ডে রাজ্যের মন্ত্রী সুব্রত মুখার্জি ,ফিরহাদ হাকিম, বিধায়ক মদন মিত্র ও প্রাক্তন মন্ত্রী শোভন দেব চট্টোপাধ্যায় কে সিবিআই গ্রেপ্তার করাই অসন্তোষ প্রকাশ করে বিজেপি দল ছাড়লেন পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার দাঁতন এর দুই বিজেপি নেতা।


একই অভিযোগ তুলে রাজ্যের প্রাক্তন বিধায়ক তথা প্রাক্তন ফুটবলার দীপেন্দু বিশ্বাস বিজেপি দল ছেড়ে দেওয়ার কথা ঘোষণা করে দলের রাজ্য সভাপতি কে চিঠি দিয়েছেন । দীপেন্দু বিশ্বাসের দেখানো রাস্তায় শনিবার পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার  দাঁতন দক্ষিণ মন্ডলের বিজেপির সভাপতি রঞ্জিত মল্লিক ও দাঁতন কিষান মোর্চার সভাপতি বিকাশ দাস লিখিতভাবে বি জে পি দলের পশ্চিম মেদিনীপুর সাংগঠনিক জেলার সভাপতি সৌমেন তেওয়ারি কে চিঠি দিয়ে বিজেপি দল ছাড়ার কথা ঘোষণা করেন। 


বিজেপি নেতা রঞ্জিত মল্লিক বলেন করোন পরিস্থিতিতে মানুষের পাশে না দাঁড়িয়ে মানুষের দৃষ্টি অন্য দিকে ঘুরিয়ে দেওয়ার জন্য সিবিআই রাজ্যের মন্ত্রী ও নেতাদের গ্রেপ্তার করছে। যা আমরা মন থেকে মেনে নিতে পারিনি ।বিজেপি নেতাদের উচিত ছিল করোনাকালে অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়িয়ে তাদের সহযোগিতা করা। তা না করে নারদ কান্ডে নেতা-মন্ত্রীদের গ্রেপ্তার করে বাংলায় একটা অস্থিরতা সৃষ্টি করতে চাইছে ।তাই মনে প্রানে বিজেপি দল ছেড়ে দেওয়ার কথা আমরা ঘোষণা করেছি। 


কারণ এই বিজেপি দলে থাকলে মানুষ আমাদের আর ক্ষমা করবে না। তাই বিজেপি দল ছেড়ে করোনা আক্রান্ত মানুষের সেবা করার জন্য আমরা কাজ শুরু করেছি। তবে তাদের অভিযোগ মানতে নারাজ বিজেপির জেলা  সভাপতি সৌমেন তেওয়ারি। তিনি বলেন ওদের অভিযোগ ঠিক নয় ।তৃণমূল কংগ্রেসের চাপের কাছে ওরা বিজেপি দল ছাড়ার কথা ঘোষণা করেছে।


 তৃণমূল কংগ্রেসের পক্ষ থেকে জানানো হয় যে কোন বিজেপি নেতা কর্মীকে দল ছেড়ে দেওয়ার জন্য তৃণমূল কংগ্রেস চাপ দেয় নি । বিজেপি দলের অনেকেই আছে যারা  মানুষের কথা ভেবে বিজেপি দল ছেড়ে দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছে । ওই ঘটনার সাথে তৃণমূল কংগ্রেসের কোন সম্পর্ক নেই। রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে বিজেপির জেলা সভাপতি তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করছে।

No comments:

Post a Comment

Post Top Ad